মাইটোসিস কাকে বলে?মাইটোসিসের বৈশিষ্ট্য,গুরুত্ব এবং কোথায় ঘটে

সংজ্ঞা :- যে কোষ বিভাজন প্রক্রিয়ায় প্রথমে নিউক্লিয়াস ও পরে সাইটোপ্লাজম মাত্র একবার বিভাজিত হয়ে একটি মাতৃকোষ থেকে সংখ্যক ক্রোমোজোম বিশিষ্ট এবং সমগুণসম্পন্ন দুটি অপত্য কোষের সৃষ্টি হয় তাকে মাইটোসিস বলে। 

  • মাইটোসিস কোষ জীবের দেহ কোষে অবস্থান করে ।

মাইটোসিসের বৈশিষ্ট্য :-

  • ১। এ প্রক্রিয়ায় প্রতিটি ক্রোজোসোম লম্বালম্বিভাবে তথ্য অনুদৈর্ঘ্যে দুটি ক্রোমাটিডে বিভক্ত হয়।
  • ২। প্রতিটি ক্রোমাটিড তথা অপত্য ক্রোজোসোম তার নিকটস্থ মেরুতে পৌঁছে দুটি অপত্য নিউক্লিয়াসের সৃষ্টি করে। কাজেই দুটি অপত্য কোষেই ক্রোজোসোম সংখ্যা সমান থাকে ।
  • ৩। অপত্য কোষগুলো মাতৃকোষের সমান গুণসম্পন্ন হয়, কারণ জীবের বৈশিষ্ট্য নিয়ন্ত্রক জিনসমূহ বহনকারী ক্রোজোসোমগুলোর প্রতিটি লম্বালম্বিভাবে বিভক্ত হয়ে দুটি অপত্য কোষের নিউক্লিয়াসে যায় ।
  • 8। অপত্য কোষের ক্রোজোসোম সংখ্যা মাতৃকোষের ক্রোজোসোম সংখ্যার সমান থাকে ।
  • ৫. অপত্য কোষ বৃদ্ধি পেয়ে মোটামুটি মাতৃকোষের সমান আয়তনের হয়।

আরও পড়ুন :- মাইটোসিস এর ধাপ এবং মাইটোসিস কোষ বিভাজনের তাৎপর্য 

মাইটোসিস এর গুরুত্ব :-

জীবকুলে মাইটোসিসের বেশ কিছু গুরুত্ব বা - প্রয়োজনীয়তা পরিলক্ষিত হয়।

নিম্নে মাইটোসিসের কয়েকটি গুরুত্ব বা প্রয়োজনীয়তা উল্লেখ করা হলো:-

। নিউক্লিয়াস ও সাইটোপ্লাজমের ভারসাম্য রক্ষা: 
মাইটোসিসের মাধ্যমে নিউক্লিয়াস ও সাইটোপ্লাজমের মধ্যে ভারসাম্য বজায় থাকে; ফলে কোষের আকৃতি ও আয়তন নির্দিষ্ট থাকে।

। সুশৃঙ্খল বৃদ্ধি : 
মাইটোসিসে সৃষ্ট অপত্য কোষে ক্রোমোসোমের সংখ্যা ও গুণাগুণ একই রকম থাকায় দেহের বৃদ্ধি সুশৃঙ্খলভাবে হতে পারে।

। দৈহিক বৃদ্ধি ঃ 
মাইটোসিসের ফলে বহুকোষী জীবের দৈহিক বৃদ্ধি ঘটে । সকল বহুকোষী জীবই জাইগোট নামক একটি কোষ হতে জীবন শুরু করে। এর একটি কোষই পুণঃ পুণঃ বিভাজনের ফলে অসংখ্য কোষ সৃষ্টির মাধ্যমে পূর্ণ জীবের আকৃতি প্রদান করে ।

 বংশবৃদ্ধি ঃ
এককোষী সুকেন্দ্রিক( eukaryotic) জীবে মাইটোসিস প্রক্রিয়ায় বংশবৃদ্ধি ঘটে ।যেমনঃ Chalamydomonas।

। অঙ্গজ প্রজনন : 
অঙ্গজ প্রজনন সাধিত হয় মাইটোসিসের (mitosis)ফলে  ।

 ক্ষতস্থান পূরণ : 
জীবদেহের ক্ষতস্থানকে পূরণ করতে মাইটোসিস গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে । 

 জননকোষের সংখ্যা বৃদ্ধি ঃ 
জননকোষের সংখ্যা বৃদ্ধিতেও মাইটোসিস গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। 

মাইটোসিস কোথায় ঘটে :-

সকল উদ্ভিদ এবং প্রাণির বর্ধনশীল অঙ্গে মাইটোসিস সংগঠিত হয়। ইহা ব্যতীত এককোষী শৈবাল কিংবা আদ্য প্রাণী হতে আরম্ভ করে সপুষ্পক উদ্ভিদ এবং মেরুদণ্ডী প্রাণিদেহে মাইটোসিস দেখতে পাওয়া যায় ।

উদ্ভিদের কান্ড ও মূলের অগ্রভাগ, পত্র ও পুষ্পমুকুল, অগ্রমুকুল, ভ্রূণমূল, মৃদ্‌গত কাল্ডের মুকুল প্রভৃতি সজীব দেহকোষে মাইটোসিস সংগঠিত হয়। উচ্চতর প্রাণিদেহে সংগঠিত ভ্রুণের পরিস্ফূটন ও বৃদ্ধিকাল হতে জন্মের পর নির্দিষ্ট বয়ঃসীমা পর্যন্ত মাইটোসিস হয় । প্রসংগতঃ নিউরোন জন্মগ্রহণের পর বিভাজিত হয় না ।

ও অপত্য কোষ (Daughter Cell) গঠনের সময় মাতৃকোষটি (Mother Cell) চারটি দশা বা ফেস (Phase) বা অবস্থা (Stage) অতিক্রম করে।

  • ১. প্রোফেজ বা প্রথম অবস্থা (Prophase)
  • ২. মেটাফেজ বা দ্বিতীয় অবস্থা (Metaphase) 
  • ৩. অ্যানাফেজ বা তৃতীয় অবস্থা (Anaphase)
  • ৪. টেলোফেজ বা চতুর্থ অবস্থা (Telophase)

সমীকরণিক কোষ বিভাজন 

যে বিভাজন প্রক্রিয়ায় নিউক্লিয়াস ও ক্রোমোজোম ধারাবাহিক প্রক্রিয়ায় বিভক্ত হয়ে দুটি অপত্য কোষে পরিণত হয় তাকে সমীকরণিক কোষ বিভাজন বলে । 

মাইটোসিস কে সমীকরণিক কোষ বিভাজন বলা হয় কেন ?

মাইটোসিস কোষ বিভাজনে মাতৃকোষ একটি ধারাবাহিক প্রক্রিয়ায়  বিভক্ত হয়ে দুটি অপত্য কোষে পরিণত হয়। অপত্য কোষ গুলো নিউক্লিয়াস ও ক্রোমোজোম সংখ্যা ও গুনাগুন মাতৃকোষের মতো  হয়। এ কারণেই মাইটোসিস বিভাজন কে সমীকরণিক বিভাজন বলা হয়। 

আপনার পছন্দ হতে পারে এমন আরও পোস্টের তালিকা

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

শিক্ষাগার ওয়েবসাইটের নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url