মাইটোসিস এর ধাপ এবং মাইটোসিস কোষ বিভাজনের তাৎপর্য

যে কোষ বিভাজন প্রক্রিয়ায় একটি সুগঠিত কোষের নিউক্লিয়াসের একবার ও ক্রোমোজোমের একবার বিভক্তির মাধ্যমে দুটি মাতৃগুণ সম্পন্ন অপত্য কোষ সৃষ্টি হয় সেটিই মাইটোসিস। 

মাইটোসিস এর ধাপ :

মাইটোসিস কোষ বিভাজনের ৫টি ধাপ :

  • ১। প্রোফেজ । 
  • ২। প্রো-মেটাফেজ । 
  • ৩। মেটাফেজ । 
  • ৪ । এনাফেজ । 
  • ৫। টেলোফেজ । 

এই ৫টি ধাপের প্রতিটি ধাপে কিছু গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা ঘটে। যেমন –

‘প্রোফেজ' এর উল্লেখযোগ্য ঘটনা : 

এই ধাপের শেষে নিউক্লিওলাস এবং নিউক্লিয়ার মেমব্রেন বিলুপ্ত হয়।

‘প্রো- মেটাফেজ' এর উল্লেখযোগ্য ঘটনা : 

এ ধাপে তন্তুময় প্রোটিনের সমন্বয়ে কোষে দুই মেরুযুক্ত মাকু বা স্পিন্ডল যন্ত্রের সৃষ্টি হয়। প্রতিটি ক্রোমোসোমের সেন্ট্রোমিয়ার স্পিন্ডল যন্ত্রের একটি তন্ত্রের সাথে সংযুক্ত হয় ।

‘মেটাফেজ' এর উল্লেখযোগ্য ঘটনা :

এ পর্যায়ে ক্রোমোসোমগুলো সর্বাধিক মোটা ও খাট হয়। সেট্রোমিয়ার দুটি খন্ডে বিভক্ত হয় ও ক্রোমাটিড স্পষ্ট হয় এবং সেন্ট্রোমিয়ার বিষুব অঞ্চলে অবস্থান করে ।

আরও পড়ুন :- মাইটোসিস কাকে বলে? মাইটোসিসের বৈশিষ্ট্য, গুরুত্ব এবং কোথায় ঘটে

‘এনাফেজ' এর উল্লেখযোগ্য ঘটনা : 

প্রতিটি ক্রোমোসোমের দুটি আলাদা ক্রোমোটিড স্পিন্ডল যন্ত্রের দুই বিপরীত মেরুর দিকে অগ্রসর হয়। এক্ষেত্রে সেন্ট্রোমিয়ার অগ্রগামী ও বাহুদ্বয় অনুগামী হয়। অপত্য ক্রোমোসোমগুলো মেরুর কাছাকাছি পৌঁছালে এনাফেজ ধাপের সমাপ্তি ঘটে ।

‘টেলোফেজ' এর উল্লেখযোগ্য ঘটনা : 

পানি শোষণ করে ক্রোমোসোমগুলো পুনরায় সরু ও লম্বা হয়। পুনরায় নিউক্লিওলাস ও নিউক্লিয়ার মেমব্রেনের আবির্ভাব ঘটে। স্পিন্ডল যন্ত্র অদৃশ্য হয়ে যায়। মাতৃকোষ দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে দুটি নতুন অপত্যকোষের সৃষ্টি হয় ।

মাইটোসিস কোষ বিভাজনের তাৎপর্য :-

  • ১. বহুকোষী জীবে জাইগোট নামক একটি মাত্র কোষের মাইটোসিস বিভাজনের মাধ্যমে বহুকোষী দেহ গঠিত হয় এবং এর দৈহিক বৃদ্ধি ঘটে ।
  • ২. মাইটোসিস বিভাজনের ফলেই বহুকোষী জীবের জননাঙ্গ সৃষ্টি হয়, ফলে বংশ বৃদ্ধির ক্রম ধারা বজায় রাখতে পারে । 
  • ৩. ঐ বিভাজন প্রক্রিয়ার ফলে কোষের স্বাভাবিক আকার, আকৃতি, আয়তন ইত্যাদি গুণাগুণ বজায় থাকে ।
  • ৪. প্রতিটি কোষের নিউক্লিয়াস ও সাইটোপ্লাজমের মধ্যকার পরিমাণগত ও নিয়ন্ত্রণগত ভারসাম্য রক্ষিত হয়।
  • ৫. দেহের সব কোষে সমসংখ্যক ও সমগুণসম্পন্ন ক্রোমোজোম থাকে । 
  • ৬. বহুকোষী জীবদেহে সৃষ্ট যে কোনো ক্ষতস্থান মাইটোসিস প্রক্রিয়ায় কোষ বিভাজনের মাধ্যমে দ্রুত পূরণ হয়।
  • ৭. জীবজগতের গুণগত বৈশিষ্ট্যের স্থিতিশীলতা বজায় থাকে ।

মাইটোসিস কে সমীকরণিক কোষ বিভাজন বলা হয় কেন ?

মাইটোসিস কোষ বিভাজনে মাতৃকোষ একটি ধারাবাহিক প্রক্রিয়ায়  বিভক্ত হয়ে দুটি অপত্য কোষে পরিণত হয়। অপত্য কোষ গুলো নিউক্লিয়াস ও ক্রোমোজোম সংখ্যা ও গুনাগুন মাতৃকোষের মতো  হয়। এ কারণেই মাইটোসিস বিভাজন কে সমীকরণিক বিভাজন বলা হয়। 

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

শিক্ষাগার ওয়েবসাইটের নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url