মাছ - বাংলা প্রবন্ধ রচনা

উপস্থাপনা ঃ 

বাংলাদেশ ষড়ঋতুর দেশ, নদীমাতৃক দেশ। এর বুক চিরে অসংখ্য নদনদী, শাখা নদী, উপনদী, খাল ইত্যাদি এঁকেবেঁকে বয়ে গেছে। এ সবে আছে বিভিন্ন জাতের ছোট-বড় অসংখ্য মাছ। তাই আবহমানকাল থেকে বাংলাদেশে একটা প্রবাদ প্রচলিত আছে । 'মাছে ভাতে বাঙালি'।

ভাত যেমন বাঙালির প্রধান খাদ্য, মাছও তেমনি প্রধান ব্যঞ্জন । মাছ না হলে বাংলাদেশের মানুষের চলে না । আর মাছই স্মরণাতীতকাল থেকে বাঙালির শরীরে পুষ্টি যুগিয়ে আসছে। আমরা প্রতিদিন যেসব বস্তু খেতে থাকি তাতে মাছ এক অত্যাবশ্যক আইটেম । এখানে সামান্য কয়েকটা মাছের পরিচয় তুলে ধরা হল-

ইলিশ ঃ 

ইলিশ রুপোর মতো চকচকে সাদা রঙের মাজারি আকারের মাছ। এরা গভীর ও লোনা পানির মাছ বলে খালেবিলে, ডোবা নালায় সর্বত্র পাওয়া যায় না। কেবল পদ্মা মেঘনা প্রভৃতি নদীতে ও সাগর মোহনায়ই ইলিশ মাছ মেলে । এ মাছ অত্যন্ত সুস্বাদু। ইলিশ আমাদের জাতীয় মাছ। এ মাছ পুকুরে চাষ করা যায় না।

আরও পড়ুন :-  পাট - বাংলা প্রবন্ধ রচনা

রুই ঃ 

রুই আকারে বেশ বড় হয়। খেতে খুব সুস্বাদু। বর্তমানে অত্যন্ত বেশি দাম দিয়ে কিনতে হয় বলে সাধারণ মানুষ এ মাছ খেতে পারে না । এ মাছও খুব অল্প পানিতে থাকতে পারে না। তবে এটা পুকুরে চাষ করা যায় ।

কাতলা ঃ 

এ মাছও বর্তমানে খুব বেশি দামে বিক্রয় হয়। খেতে খুব স্বাদ। রুইয়ের মতো আকারেও বেশ বড়। এ মাছ পুকুরে চাষ করা চলে । চাষও বেশ লাভজনক ।

মৃগেল ঃ 

মৃগেল মাছ বেশ বড় হয় । পুকুরে চাষ করা যায়। এগুলো সাধারণত খালে-বিলে থাকে না বললেই চলে ।

পুঁটি ঃ 

পুঁটি বাংলাদেশের সর্বত্র প্রচুর পরিমাণে পাওয়া যায়। এটা ছোট আকৃতির মাছ, খেতে বেশ ভালো এবং প্রোটিনসমৃদ্ধ । বাংলাদেশের নদনদী, খালবিল, পুকুর, ডোবা, নালা সর্বত্রই এ মাছ পাওয়া যায় । বলতে গেলে বর্তমানে পুঁটিই সাধারণ মানুষের মাছ। এ পুঁটি দামে সস্তা।

আরও পড়ুন :-  চা - বাংলা প্রবন্ধ রচনা

শিং ও মাগুর ঃ

শিং ও মাগুর বিষাক্ত কাঁটাওয়ালা মাছ। বাংলাদেশের সব জায়গায়ই কমবেশি এ মাছ দেখা যায়। খালবিল ও পুকুর থেকে ধরে কোন পাত্রে পানিতে জিইয়ে এসব মাছ অনেকদিন ঘরে রাখা যায় । এ মাছ খেতে খুব স্বাদ এবং খুবই পুষ্টিকর । তাই রোগীর পথ্য হিসেবে ডাক্তাররা এসব মাছ খেতে পরামর্শ দেন। অন্যান্য মাছের তুলনায় এ মাছের দামও অনেক বেশি ।

কৈ ঃ 

কৈ বাংলাদেশের আর একটা বহুল পরিচিত মাছ। ডোবা, খালবিল, নালা, পুকুর সবখানেই এ মাছ পাওয়া যায় । খেতে খুব সুস্বাদু। আকারে ছোট, কিন্তু এর প্রাণশক্তি খুব বেশি । ঘরে পানিপূর্ণ পাত্রে অনেক দিন জিইয়ে রাখা যায় । এ মাছ কানে ভর করে চলতে পারে । এর দামও খুব বেশি ।

কাঁচকি ঃ 

এটা খুব ছোট জাতের সুস্বাদু এবং প্রচুর প্রোটিনসমৃদ্ধ মাছ । দামেও সস্তা ।

উপসংহার ঃ 

এসব মাছ ছাড়া আরো অনেক রকমের মাছ আছে। যেমন- শৈল, গজার, বোয়াল, পাবদা, চিংড়ি, বৈচা, মলা, বাইম ইত্যাদি । কিন্তু দুঃখজনক হলো, বাংলাদেশে মাছ দিন দিন কমে আসায় দুর্মূল্য হয়ে উঠছে। তাই মাছের উৎপাদন বৃদ্ধির জন্য আমাদের সচেষ্ট হওয়া প্রয়োজন । সরকারের উচিত, মৎস্যচাষীদেরকে আর্থিক সুবিধা প্রদানসহ প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করে মৎস চাষে উৎসাহিত করা।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

শিক্ষাগার ওয়েবসাইটের নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url