কোলেনকাইমা টিস্যুর সংজ্ঞা, গঠন, অবস্থান, বৈশিষ্ট্য ও কাজ

সংজ্ঞা :- যে সকল স্থায়ী টিস্যুর কোষপ্রাচীর অসমভাবে পুরু এবং কোনাগুলো অধিক পুরু তাকে কোলেনকাইমা টিস্যু বলে। 

কোলেনকাইমা গ্রাউণ্ড মেরিস্টোমের কোষ হতে উৎপন্ন হয়। অনেক সময় প্রোক্যাম্বিয়াম হতেও কোলেনকাইমা উৎপন্ন হতে পারে ।

কোলেনকাইমা টিস্যুর অবস্থান :-

(১) সাধারণত দ্বি-বীজপত্রী কান্ডের বহিঃত্বকের নিচে কোলেনকাইমার অবস্থান । 

(২) কখনও কখনও পত্রবৃন্তে এরা বিস্তার লাভ করে।

(৩) মধ্যশিরায় এদের অবস্থান পরিলক্ষিত হয়।

(৪) পুষ্পদন্ডেও কোলেনকাইমা দেখতে পাওয়া যায় ।

কোলেনকাইমা টিস্যুর গঠন :-

(১) কোলেনকাইমা বহুভূজবিশিষ্ট ক্ষেত্রাকার, অপেক্ষাকৃত স্থূলপ্রকারাবন্ধ লম্বা ও বেলুনাকার (Cylindricall) এবং সজীব।

(২) কোষগুলোতে সাইটোপ্লাজম, নিউক্লিয়াস, ক্লোরোপ্লাস্টিড ও ভ্যাকুওল দেখা যায়। কিন্তু কোষান্তরে রন্ধ্র দেখা যায় না ।

(৩) কোলেনকাইমা কোষের কোষপ্রাচীর পাতলা বা স্থুল এবং পেক্‌টিন, হোমসেলুলোজ ও সেলুলোজ দ্বারা গঠিত।

আরও পড়ুন :- প্যারেনকাইমা টিস্যুর সংজ্ঞা, গঠন, অবস্থান, বৈশিষ্ট্য ও কাজ 

কোলেনকাইমা টিস্যুর কাজ :-

(১) কোলেনকাইমা কোষে ক্লোরোপ্লাস্ট থাকায় এরা খাদ্য প্রস্তুতিতে সক্ষম।

(২) বর্ধিষ্ণু অঙ্গে স্থিতিস্থাপকতা (Elasticity) বৃদ্ধি করে।

(৩) কোলেনকাইমার কাজ মূলতঃ যান্ত্রিক (Mechanical), কাণ্ডকে দৃঢ় রাখে- বাতাসের বেগে সহজে ভাঙ্গন তিরোধ করে ।

কোলেনকাইমা টিস্যুর বৈশিষ্ট্য:

  • ১. কোষগুলো কিছুটা লম্বাকৃতির ও সজীব ।
  • ২. কোষে সাইটোপ্লাজম, নিউক্লিয়াস ও কোষগহ্বর বিদ্যমান । 
  • ৩. কোষপ্রাচীর অসমভাবে পুরু ।
  • ৪. কোষপ্রাচীরের কোণে পেকটিন জমা হওয়ার জন্য ঐ স্থান অধিক মোটা । 
  • ৫. প্রস্থচ্ছেদে কোষগুলোকে অনেকটা বহুভুজাকৃতির দেখায় ।
  • ৬. এদের মধ্যে আন্তঃকোষীয় ফাঁক থাকতে পারে ।
  • ৭. কোন কোন সময় ক্লোরোপ্লাস্ট থাকতে পারে ।
  • ৮. কোষপ্রাচীর সেলুলোজ ও পেকটিন নির্মিত, তাই প্রাচীর ততটা নমনীয় নয় ।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

শিক্ষাগার ওয়েবসাইটের নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url