ভাব সম্প্রসারণ : কেরোসিন শিখা বলে মাটির প্রদীপে

মূলভাব : সামাজিক পদমর্যাদা ও আভিজাত্যের ওপর ভিত্তি করে অহঙ্কারী মানুষ মানুষকে অবমূল্যায়ন করে। অহঙ্কারী মানুষের এ প্রবৃত্তি অশোভনীয় ।

সম্প্রসারিত ভাব : যারা অনেক প্রতাপশালী ও অধিক সম্মানী তাদের প্রতি সবারই একটি মোহ আছে। আত্মীয় যদি দরিদ্র হয় তাহলে এক শ্রেণির অহঙ্কারী মানুষ দ্ররিদ্র শ্রেণির মানুষকে পরিচয় দিতে কুণ্ঠাবোধ করে। দরিদ্র আত্মীয়কে পরিচয় দিতে তারা লজ্জাজনক ও পদমর্যাদার হানি মনে করে। দরিদ্র আত্মীয়কে যথাসম্ভব পরিচয় না দেওয়ার প্রয়াস পায়। কবি কোরোসিন শিখাকে এখানে রূপকছলে উল্লেখ করেছেন। কেরোসিন শিখা ও মাটির প্রদীপ উভয়ে আলো দান করে। সুতরাং এরা সমগোত্রীয়। কিন্তু কোরোসিন শিখার আলো উজ্জ্বল, আর মাটির প্রদীপের আলো স্নিগ্ধ ও স্তিমিত। এজন্য কেরোসিন শিখা নিজের উজ্জ্বল আলোতে গর্বিত হয়ে মাটির প্রদীপকে সমগোত্রীয় বলে পরিচয় দিতে অপমানবোধ করে। পক্ষান্তরে চাঁদ যখন তার শুভ্র-স্নিগ্ধ আলো নিয়ে আকাশে ওঠে তখন কেরোসিন শিখা তার সাথে আত্মীয়তা করতে দ্বিধা না করে বরং আগ্রহী হয়ে ওঠে।

এরূপ আচরণ কেরোসিন শিখার হীনমন্যতার পরিচয় দেয়। আকাশে গ্রহ, উপগ্রহ, নক্ষত্রমালা ও জ্যোতিষ্কমণ্ডলী সকলেই উচ্চ শ্রেণিভুক্ত। তারা তাদের মধ্যে কোনো প্রভেদের সৃষ্টি করে না। তেমনি মানবসমাজেও যারা উদার, মার্জিত ও প্রকৃত গুণসম্পন্ন তাঁরা কোনো শ্রেণিভেদ করেন না। তাঁরা সকলকে আপনজন বলে মনে করেন।

মন্তব্য : সকলেরই উচিত ধন, মান ও দৌলতের গর্বে স্ফীত না হয়ে অসহায় গরিব আত্মীয়স্বজনকে সমগোত্রীয় মনে করা। মানুষে মানুষে প্রভেদের মনোবৃত্তি ত্যাগ করা।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

শিক্ষাগার ওয়েবসাইটের নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url