একটি দিনের দিনলিপি - বাংলা রচনা

মানুষের স্মৃতিতে তার প্রত্যাহিক কর্মকাণ্ডের সবই জমা হয়ে থাকে না, সারাজীবন। কিছু বিশেষ বিশেষ দিন বা ঘটনার স্মৃতি সারাজীবন মানুষের মনে অম্লান থাকে। তেমনই একটা দিন হলো আমার কক্সবাজার বেড়াতে যাওয়ার ঘটনা। যেটা আমি আজ আমার ডায়েরিতে লিখতে বসেছি।

সেদিন ছিল ৫ই জানুয়ারি। আমি শীতের ছুটিতে মামার বাড়ি চট্টগ্রামে বেড়াতে এসেছি। পূর্বের পরিকল্পনামতো সেদিন আমাদের কক্সবাজার বেড়াতে যাওয়ার কথা, ভোরবেলা গাড়ি এসে বাসায় হাজির হলো । 

সকাল ছটার মধ্যে রেডি হয়ে আমি ও আমার মামাতো ভাই বোন মিলে সবাই বসে ছিলাম। পরে মামা-মামি, বাবা-মা, এবং আমরা ভাইবোনরা সবাই গাড়িতে উঠে বসলাম। সারাটা পথ পুরো গাড়ির সবাইকে মাতিয়ে রাখলাম গানে, গল্পে আর হাসিতে।

বাড়তি আনন্দ পাচ্ছিলাম রাস্তার দুধারের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য দেখে। রাস্তার দুধারের গভীর জঙ্গল আর পাহাড়ের অপূর্ব প্রাকৃতিক সৌন্দর্য আমাদেরকে মুগ্ধ করে দিচ্ছিল। দূর থেকে দেখা সমুদ্রের বুকের নীল জলরাশি সমুদ্রকে কাছ থেকে দেখার তৃষ্ণা আরও বাড়িয়ে দিল। আমি আগে কখনো সমুদ্র দেখিনি । তাই সমুদ্রের এই রোদ ঝিকমিক জলরাশি আমাকে মুগ্ধ করে দিল ।

আরও পড়ুন :-  একটি স্মরণীয় ঘটনা - রচনা

টিভিতে বহুবার সাগর দেখেছি কিন্তু বাস্তবের সাথে তার কোনো তুলনা হয় না। খুব ইচ্ছে হচ্ছিল দৌড়ে সমুদ্রে নামতে, কিন্তু বড়দের কড়া নির্দেশ, মামার বন্ধুর বাসায় গিয়ে বিশ্রাম নিয়ে তারপরে সমুদ্রে নামতে হবে।

মামার বন্ধুর পরিবারটি একটি চাকমা পরিবার। তাদের তিনটি বাচ্চা, আমাদের বয়সী, খুব দ্রুত তাদের সাথে বন্ধুত্ব হয়ে গেল। খুশি হলাম আদিবাসী বন্ধু পেয়ে । এরপর সমুদ্র সৈকতের পথে রওনা দিলাম ।

হরেক রকম পণ্যের পসরা সাজানো দোকান আর তপ্ত বালিয়ারির সৈকত পেরিয়ে তবে সমুদ্রের জলরাশি। নীল জলরাশি যেন আকাশকে ছুঁয়েছে। এক মুহূর্তও নষ্ট না করে সমুদ্রের পানিতে নেমে পড়লাম । গায়ের ওপর দিয়ে একের পর এক ঢেউ ভেঙে পড়ছে। ফিরতি স্রোত আমাদের টেনে নিয়ে যেতে চাচ্ছে গভীর সমুদ্রের দিকে আর পরক্ষণেই আরেকটি স্রোত ঠেলে দিচ্ছে তীরে।

আরও পড়ুন :-  আমার দেখা একটি মেলা - রচনা : class 6, 7, 8

শীতের মৌসুমে আসা হাজার হাজার পর্যটকের পদচারণায় মুখর । সৈকত ৷ গোটা সমুদ্র সৈকত তাদের আনন্দ-উচ্ছ্বাসে উচ্ছ্বল । বড়দেরকে কথা দিয়েছিলাম তাই আমরা কেউ বেশি গভীরে গেলাম না। দুই ঘণ্টা পেরিয়ে যাওয়ার পর আমরা সমুদ্র থেকে উঠে মামার বন্ধুর বাড়ির দিকে রওনা দিলাম ।

বিকেলে আমরা কেনাকাটার উদ্দেশে বার্মিজ মার্কেটে গেলাম । মার্কেটে যাওয়ার পথে সমুদ্রে সূর্য ডোবার অনন্য সুন্দর দৃশ্য দেখার সৌভাগ্য হলো।

সন্ধ্যার পরপরই আমরা চট্টগ্রামের উদ্দেশ্যে রওনা হলাম । চট্টগ্রামে কিছুতেই ফিরতে ইচ্ছা হচ্ছিল না। গাড়ি থেকেই দেখলাম চাঁদের আলোয় রুপালি হয়ে গেছে সাগর। আমি অপলক তাকিয়ে রইলাম । রাত্রি প্রায় দশটায় আমরা চট্টগ্রামে এসে পৌঁছলাম ।

রাতে কোনরকমে খেয়ে দেয়ে সবাই ঘুমানোর জন্যে চলে গেল। আর আমি মজার এই স্মৃতিটাকে দিনপঞ্জির খাতায় লিখে রাখলাম ।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

শিক্ষাগার ওয়েবসাইটের নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url