জাইলেম ও ফ্লোয়েম টিস্যুর সংজ্ঞা, গঠন, কাজ ও পার্থক্য

সংজ্ঞা : যে টিস্যু বা কলা মূল থেকে পানি ও খনিজ লবণ উদ্ভিদের পাতা পর্যন্ত পৌঁছায় তাকে জাইলেম টিস্যু বলে।

জাইলেম টিস্যুর বর্ণনা :

শিরাত্মক টিস্যু সমষ্টি বা ভাসকুলার টিস্যুর একটি প্রধান অংশ হল জাইলেম । প্রধানতঃ মৃত এই টিস্যুর কোষগুলো বৃদ্ধির সময় জটিলভাবে পরিবর্তিত হয়ে প্রাথমিক পর্যায়ে চার প্রকার উপাদানে বিভেদিত হয়।

জাইলেম যে অংশে প্রথমে বিভেদিত হয়, তাকে বলে প্রোটোজাইলেম (Protoxylem)। প্রোটোজাইলেম বাহিকাগুলো সরু ও লম্বা এবং প্রাচীর বলয়াকৃতি ও সপিটিস্যুকৃতির হয়। পক্ষান্তরে, জাইলেমের যে অংশ পরে বিভেদিত হয়, তাকে মেটাজাইলেম (Metaxylem) বলে। মেটাজাইলেম বাহিকা বেশ স্থূল এবং প্রাচীর কৃপাঙ্কিত হয়।

জাইলেম টিস্যুর গঠন :- 

জাইলেম টিস্যু চার প্রকার কোষ নিয়ে গঠিত।

১) ট্রাকীড : এরা মৃতকোষ । পানি সঞ্চয় ও উদ্ভিদের দৃঢ়তা প্রদান করে ।

২) ট্রাকিয়া বা ভেসেল : এরাও মৃত। এরা খনিজ লবণ ও পানি সংবহন করে ।

৩) জাইলেম প্যারেনকাইমা : এই কোষগুলো জীবিত বা সজীব। এরা খাদ্য ও বর্জ্য্য পদার্থ সঞ্চয় করে রাখে। এছাড়া পানি ও খনিজ লবণ সংবহন ও উদ্ভিদে দৃঢ়তা প্রদান করে ।

৪) জাইলেম তন্তু বা কাস্টল তন্তু : এরা মৃতকোষ । উদ্ভিদ অঙ্গের দৃঢ়তা প্রদান করাই এর প্রধান কাজ ।

আরও পড়ুন :- ট্রাকিড ও ভেসেল এর সংজ্ঞা, বৈশিষ্ট্য, অবস্থান, কাজ ও পার্থক্য

জাইলেম টিস্যুর কাজ :-

i. জাইলেম টিস্যুস্থ ভেসেল মূল হতে পানি ও পানিতে দ্রবীভূত অন্যান্য খনিজ লবণ গাছের পাতা ও অন্যান্য সবুজ অংশে পরিবহন করে ।

ii. জাইলেম টিস্যুস্থ ট্রাকিড উদ্ভিদকে দৃঢ়তা প্রদান করা ছাড়াও মূল হতে কান্ড ও পাতায় পানি ও খনিজ লবণ পরিবহন করে থাকে ।

iii. জাইলেম টিস্যুস্থ ফাইবারসমূহ উক্ত অঙ্গকে দৃঢ়তা প্রদান করে থাকে । 

iv. জাইলেম টিস্যুস্থ প্যারেনকাইমা প্রয়োজন অনুযায়ী খাদ্য সঞ্চয় ও খাদ্য পরিবহন করে থাকে ।

ফ্লোয়েম টিস্যু

সংজ্ঞা :- যে টিস্যু সবুজ পাতায় প্রস্তুতকৃত খাদ্য উদ্ভিদ দেহের বিভিন্ন অংশে পৌঁছে দেয়, তাকে ফ্লোয়েম টিস্যু বলে।

ফ্লোয়েম টিস্যুর গঠন :- 

ফ্লোয়েম টিস্যু উদ্ভিদের পরিবহনতন্ত্রের একটি অংশ। মোট চারটি কোষ বা উপাদান নিয়ে এই টিস্যু গঠিত। আর এ কোষগুলো হলো-

(১) সীভনল :

সীভনলের কোষগুলো জীবিত । পরিণত সীভনলে নিউক্লিয়াস নেই । সীভনলের কোষগুলো একটির উপর আরেকটি লম্বালম্বিভাবে বা খাড়াভাবে সাজানো থাকে বলে সবগুলো একত্রে একটা নলের মত দেখায়। কোষের মধ্যে প্রাচীরে ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র ছিদ্র থাকে। ছিদ্রযুক্ত এ প্রাচীরকে সীভপ্লেট বলে। একটি কোষের সাইটোপ্লাজম সীভপ্লেটের ছিদ্রগুলোর মধ্য দিয়ে অপর একটি কোষের সাইটোপ্লাজমের সাথে যুক্ত থাকে ।

(২) সঙ্গীকোষ :

সীভনলের ঠিক পার্শ্বেই নিউক্লিয়াস বিশিষ্ট এবং ঘন সাইটোপ্লাজমপূর্ণ যে কোষগুলো থাকে, তাদেরকে সঙ্গীকোষ বলে। সঙ্গীকোষগুলো সজীব এবং আকারে লম্বাটে হয়। প্রত্যেকটি কোষে একটি করে নিউক্লিয়াস ও কতকগুলো ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র কোষ গহ্বর থাকে ।

(৩) ফ্লোয়েম প্যারেনকাইমা : 

এ প্রকার প্যারেনকাইমা কোষগুলো আকারে লম্বা ও চওড়া হয়। সাইটোপ্লাজম ও নিউক্লিয়াস কোষের মধ্যে থাকে।

(৪) ফ্লোয়েম ফাইবার : 

ফ্লোয়েম ফাইবার ফ্লোয়েম-এ অবস্থিত। ফ্লোয়েম ফাইবার সাধারণ ক্লেরেনকাইমা জাতীয় কোষ ।

আরও পড়ুন :- প্যারেনকাইমা, কোলেনকাইমা। প্যারেন, কোলেন, স্ক্লেরেনকাইমা পার্থক্য

ফ্লোয়েম টিস্যুর কাজ :-

i. সীভনল প্রস্তুতকৃত খাদ্যদ্রব্য সবুজ অংশ হতে দেহের বিভিন্ন সজীব অংশে পরিবহন করে ।

ii. ফ্লোয়েম ফাইবার ফ্লোয়েম টিস্যুকে তথা উদ্ভিদ অঙ্গকে দৃঢ়তা প্রদান করে। 

iii. ফ্লোয়েম প্যারেনকাইমা প্রয়োজনে খাদ্য সঞ্চয় করে এবং পরিবহনে সাহায্য করে। 

মনে রেখ : 

১. জাইলেম পানি ও খনিজ লবণ মূল থেকে পাতায় পৌঁছায় ।

২. ফ্লোয়েম খাদ্য পাতা থেকে উদ্ভিদের বিভিন্ন অংশে পৌঁছায় ।

জাইলেম ও ফ্লোয়েম এর পার্থক্য:-


জাইলেম ফ্লোয়েম
১। জাইলেম প্রধানত মৃত টিস্যু । ১। ফ্লোয়েম সজীব বা জীবিত টিস্যু।
২। জাইলেম ট্রাকিড, ভেসেল, জাইলেম ফাইবার ও জাইলেম প্যারেনকাইমা উপাদানসমূহ বিদ্যমান । ২। ফ্লোয়েমে সিভনল, সঙ্গীকোষ, ফ্লোয়েম ফাইবার ও ফ্লোয়েম প্যারেনকাইমা উপাদানসমূহ বিদ্যমান ।
৩। জাইলেমে একমাত্র জীবিত উপাদান হলো উড প্যারেনকাইমা । ৩। ফ্লোয়েমে একমাত্র মৃত উপাদান হলো ফ্লোয়েম ফাইবার ।
৪। এটি কাণ্ডের কেন্দ্রের দিকে থাকে। ৪। এটি কাণ্ডের পরিধির দিকে থাকে।
৫। পানি ও খাদ্যরস দেহে পরিবহন এবং উদ্ভিদ দেহকে দৃঢ়তা প্রদান করা জাইলেমের কাজ । ৫। খাদ্য পরিবহন ও সঞ্চয় করা ফ্লোয়েমের প্রধান কাজ ।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

শিক্ষাগার ওয়েবসাইটের নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url