সমাস কি? সমাস কাকে বলে ও কত প্রকার কি কি বিস্তারিত

সমাস কী :- 

সমাস শব্দের অর্থ ‘সংক্ষেপ' । সমাস শব্দ গঠনের একটি অতি প্রয়োজনীয় উপায় । অল্পকথায় মনের ভাব প্রকাশ করতে পারা একটি বিশেষ গুণ । রচনায় সমাসের ব্যবহারের ফলে এ গুণ প্রকাশ পায় । তাছাড়া সমাসের ফলে বাক্য সরস, মধুর এবং অনেক সময় ছন্দময় হয়ে ওঠে।

সংজ্ঞা :- পরস্পর সম্পর্কযুক্ত দুই বা ততোধিক পদের এক পদে রূপান্তরিত হওয়াকে সমাস বলে ৷

সমাস উদাহরণ :-

যেমন- ফল ও মূল = ফলমূল, ভাজা যে বেগুন = বেগুন ভাজা রাজার পুত্র = রাজপুত্র,  জন যে এক = জনৈক, ভাই ও বোন = ভাই বোন।  বীণা পানিতে যার = বিনাপানি ।

সমাস ছয় প্রকার । যথা :

১। দ্বন্দ্ব সমাস; ২। তৎপুরুষ সমাস; ৩। কর্মধারয় সমাস; ৪। দ্বিগু সমাস; ৫। বহুব্রীহি সমাস ও ৬। অব্যয়ীভাব সমাস।

১। দ্বন্দ্ব সমাস : 

যে সমাসে সমস্যমান পদগুলোর প্রত্যেকটির অর্থ প্রধান থাকে তাকে দ্বন্দ্ব সমাস বলে  । যেমন—খাতা ও কলম = খাতাকলম। ঘরে ও বাইরে = ঘরেবাইরে। দিন ও রাত = দিনরাত।

দুটির বেশি পদ মিলিত হয়েও দ্বন্দ্ব সমাস হতে পারে। যেমন— মশা-মাছি ও ছারপোকা = মশা-মাছি-ছারপোকা, উজির-নাজির ও পাত্র-মিত্র = উজির-নাজির-পাত্র-মিত্র ।

২। তৎপুরুষ সমাস : 

যে সমাসে পূর্ব পদের দ্বিতীয়া, তৃতীয়া, চতুর্থী, পঞ্চমী, ষষ্ঠী ও সপ্তমী বিভক্তি লোপ পায় তাকে তৎপুরুষ সমাস বলে। যেমন— ফুলের বাগান = ফুলবাগান। কালকে প্রাপ্ত = কালপ্রাপ্ত ।

আরও পড়ুন :- দ্বন্দ্ব সমাস কাকে বলে এবং দ্বন্দ্ব সমাসের শ্রেণীবিভাগ ব্যাখ্যা

৩। কর্মধারয় সমাস : 

বিশেষ্য পদের সাথে বিশেষণ পদের যে সমাস হয় এবং পরপদের অর্থের প্রাধান্য থাকে তাকে কর্মধারয় সমাস বলে। যেমন—মহান যে পুরুষ = মহাপুরুষ। কাঁচা যে কলা = কাঁচকলা।

কখনো বিশেষণ পদ পরে বসে। যেমন- ভাজা যে চাল = চালভাজা । কখনো উভয় পদ বিশেষ্য হয়। যেমন- যিনি মৌলবী তিনি সাব = মৌলবীসাব ।

৪। দ্বিগু সমাস : 

যে সমাসের পূর্ব পদটি সংখ্যাবাচক বিশেষণ এবং পর পদটি বিশেষ্য হয় এবং তা যদি সমাহার বা সমষ্টি বোঝায় তবে তাকে দ্বিগু সমাস বলে।

যেমন— চৌ-রাস্তার সমাহার = চৌরাস্তা। দ্বিগু সমাসে কোনো কোনো অ-কারান্ত শব্দের পরে ঈ হয়। যেমন- ত্রিপদের সমাহার = ত্রিপদী। পঞ্চ বটের সমাহার = পঞ্চবটী। চার মোহনার সমাহার = চৌমোহনী ।

৫। বহুব্রীহি সমাস : 

যে সমাসে সমস্যমান পদের অর্থ না বুঝিয়ে অতিরিক্ত অন্য কিছুকে প্রধান রূপে বোঝায় তাকে বহুব্রীহি সমাস বলে। 

যেমন— বহু ব্রীহি (ধান্য) আছে যার = বহুব্রীহি। এখানে বহু ও ব্রীহি এ দুটি পদের কোনোটির অর্থ না বুঝিয়ে যার অনেক ব্রীহি (ধান) আছে এরূপ এক ব্যক্তিকে বোঝানো হচ্ছে। ধর্মে প্রাণ যার = ধর্মপ্রাণ। চুল ধরে যে ঝগড়া = চুলাচুলি। 

৬। অব্যয়ীভাব সমাস : 

যে সমাসে অব্যয়পদ পূর্বে বসে এবং অব্যয়ের অর্থই প্রধানরূপে বোঝায় তাকে অব্যয়ীভাব সমাস বলে।

যেমন— রোজ রোজ = হররোজ। মরণ পর্যন্ত = আমরণ। ভাতের অভাব = হাভাত

সামীপ্য, সাদৃশ্য, অভাব, যোগ্যতা, পর্যন্ত, বীপ্সা, বৈপরীত্য, পশ্চাৎ, ক্ষুদ্রতা, অনতিক্রম্য, সাফল্য প্রভৃতি অর্থে অব্যয়ীভাব সমাস গঠিত হয়। যেমন— কূলের সমীপে = উপকূল, দ্বীপের সদৃশ = উপদ্বীপ, রূপের যোগ = অনুরূপ ।

আপনার পছন্দ হতে পারে এমন আরো পোস্টের তালিকা

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

শিক্ষাগার ওয়েবসাইটের নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url