অধ্যবসায় - রচনা Class - 6, 7, 8 ,9 ,10 এবং hsc| সাথে pdf ৪টি

উপস্থাপনা ঃ 

কবি বলেন-

“পারিব না এ কথাটি বলিও না আর,

একবার না পারিলে দেখ শতবার।'

কোন কাজে একবার সফলতা না এলে তার জন্য বার বার চেষ্টা করার নামই অধ্যবসায়। যে কোন মহৎ কাজ প্রথম প্রচেষ্টায় সুসম্পন্ন নাও হতে পারে। আর এজন্য যে ব্যক্তি হতাশ হয়ে পড়ে, পরাজয়ের গ্লানিতে দগ্বীভূত হয়ে কাজ থেকে দূরে সরে আসে, সে কোনদিন কোন কাজে সফলতা অর্জন করতে পারে না । সীমাহীন প্রতিকূলতার সাথে লড়াই করে যে টিকে থাকতে পারে সেই জয়ী হয় এবং তার জীবনেই আসে কাঙ্ক্ষিত সাফল্য ।

অধ্যবসায় কী ঃ 

অধ্যবসায় হচ্ছে কতিপয় গুণের সমষ্টি। চেষ্টা, উদ্যোগ, আন্তরিকতা, পরিশ্রম, ধৈর্য ইত্যাদি গুণের সমন্বয়ে অধ্যবসায় পরিপূর্ণতা লাভ করে। কোন কাজে ব্যর্থ হওয়ার পরও সফলতার জন্য পুনঃ পুনঃ চেষ্টা করার নামই অধ্যবসায়। তাছাড়া মনের আস্থা ও বিশ্বাসকে বাস্তবে রূপদানের জন্য সুদৃঢ় সংকল্প নিয়ে চেষ্টার পুনরাবৃত্তিকেও অধ্যবসায় বলা হয় ।

অধ্যবসায়ের প্রয়োজনীয়তা ঃ 

জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রেই অধ্যবসায়ের প্রয়োজনীয়তা অপরিসীম । মানব জীবনের যে কোন কাজে বাধা আসতে পারে; কিন্তু সে বাধাকে ভয় করা কাপুরুষতা । রাতের আধার পেরিয়ে যেমন উজ্জ্বল সূর্য উদয় হয়, তেমনি অবিরাম চেষ্টার ফলেই মানুষের ভাগ্যাকাশে উদিত হয় সাফল্যের ধ্রুবতারা । তাই ব্যর্থতায় অবদমিত না হয়ে নিরন্তর চেষ্টা চালিয়ে গেলে এক সময় জীবনে সাফল্য আসবেই ।

আরও পড়ুন :- অধ্যবসায় - রচনা : ২০ পয়েন্ট | সাথে pdf

ছাত্র জীবনে অধ্যবসায়ের গুরুত্ব ঃ 

ছাত্র জীবনেও অধ্যবসায়ের গুরুত্ব অনস্বীকার্য। কারণ, ছাত্র জীবনে পরীক্ষায় অকৃতকার্যতা দু- একবার হতে পারে। একটা অংক বার বার ভুল হতে পারে। কিন্তু তাই বলে, হাল না ছেড়ে দৃঢ়ভাবে বার বার চেষ্টা করলে সফলতা আসবেই । যে ছাত্র অধ্যবসায়ী নয় তার জীবনে সফলতা আসে না ।

ব্যক্তি জীবনে অধ্যবসায়ের গুরুত্ব ঃ 

অধ্যবসায় ব্যক্তি জীবনে সফলতা এনে দেয়। ব্যক্তির পূর্ণাঙ্গ ব্যক্তিত্ব বিকাশের জন্য প্রয়োজন কাজের আগ্রহ, বুদ্ধিমত্তার প্রয়োগ, সুদৃঢ় সংকল্প । জীবনে কোন কিছুই সহজলভ্য নয় । সুখের উপকরণ কারো জন্য প্রস্তুত থাকে না। ব্যক্তির যোগ্যতা ও কঠিন অধ্যবসায় দ্বারা এসব উপকরণ সংগ্রহ করে নিতে হয় । অধ্যবসায় ব্যক্তি জীবনের সকল আকাঙ্ক্ষা পূরণ করতে পারে।

অধ্যবসায় ও প্রতিভা ঃ 

অসাধারণ প্রতিভা ছাড়া কোন কঠিন কাজে সফলতা সম্ভব নয় বলে অনেকের ধারণা। কিন্তু নিরলস পরিশ্রম ও অধ্যবসায় ছাড়া শুধু প্রতিভার দ্বারা কোন কাজে সাফল্য অর্জন করা যায় না। এ প্রসঙ্গে বৈজ্ঞানিক নিউটন বলেছেন, “আমার আবিষ্কারের কারণ প্রতিভা নয়, বহু বছরের চিন্তাশীলতা ও পরিশ্রমের ফলে দুরুহ তত্ত্বগুলোর রহস্য আমি ধরতে পেরেছি।”

আরও পড়ুন :- সময়ের মূল্য - বাংলা রচনা [ Class - 6, 7, 8 ,9 ,10] এবং HSC 

অধ্যবসায়হীনতার কুফল ঃ 

অধ্যবসায়ের অভাবে অনেক সম্ভাবনাময় জীবন অকালে শেষ হয়ে যায় । অধ্যবসায়হীন ব্যক্তি জগতের কোন কাজেই সফলতা লাভ করতে পারে না। তার জীবন ধ্বংস হয়, ব্যর্থ হয় । তার স্মৃতি বিস্মৃতির অতল গর্ভে হারিয়ে যায় । সামজের আস্তাকুড়ে নির্ধারিত হয় তার ঠিকানা।

উপসংহার ঃ 

মন্ত্রের সাধন কিংবা শরীর পাতন' অধ্যবসায় সম্পর্কিত এটি একটি পরম সত্য প্রবাদ। যে ব্যক্তি অধ্যবসায়ী নয়, সে জীবনের কোন সাধারণ কাজেও সফলতা লাভ করতে পারে না। একমাত্র অধ্যবসায়ের গুণেই মানব জীবন হয় সাফল্যমণ্ডিত এবং স্মরণীয় ও বরণীয় হিসেবে তাঁদের নাম ইতিহাসের পাতায় লিখিত হয় স্বর্ণাক্ষরে।










এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

শিক্ষাগার ওয়েবসাইটের নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url