রোযার শিক্ষা - বাংলা প্রবন্ধ রচনা

উপস্থাপনা ঃ 

রোযা সকল মুসলমানদের জন্য ফরয । ইসলামের পাঁচটি স্তম্ভের মধ্যে তিন নাম্বার স্তম্ভের নাম রোযা। খোদাভীতির উপযুক্ত পরীক্ষা রোযা। রোযার মাধ্যমে মানুষ আত্মসংযম, আধ্যাত্মিক উন্নতি, খোদাভীতির পরীক্ষাগুলো দিয়ে থাকে ।

রোযার পরিচয় ঃ 

রোযা ফারসী শব্দ, রোযার আরবী শব্দ হচ্ছে সিয়াম । রোযার আভিধানিক অর্থ হচ্ছে-বিরত থাকা । ইসলামী শরীয়তের পরিভাষায় আল্লাহ তায়ালার উদ্দেশ্যে সুবহে সাদিক হতে সূর্যাস্ত পর্যন্ত যাবতীয় ইন্দ্রিয় তৃপ্তি ও পানাহার হতে বিরত থাকার নামই রোযা।

রোযা মুসলিমের ঢালস্বরূপ ঃ 

রোযা মানুষকে যাবতীয় অপকর্ম হতে দূরে রাখে। মানুষ লোভ-লালসা ক্রোধ ইত্যাদির তাড়নায় বিপদগামী হয় । রোযা মানুষের মন থেকে এসব লালসা দূর করে। তাই হযরত মুহাম্মদ (সঃ) বলেছেন, “রোযা মুসলিমের ঢালস্বরূপ।”

আরও পড়ুন :- ঈদ উৎসব - বাংলা রচনা | ক্লাস 6, 7, 8, 9, 10

রোযা আল্লাহ প্রেমের শিক্ষা দেয় ঃ 

রোযার মাধ্যমে মানুষের মনে আল্লাহর জন্য গভীর প্রেমের অনুভূতি সৃষ্টি হয়। এটি লোক দেখানো কোনো পরীক্ষা নয় । সম্পূর্ণ মনের ব্যাপার। তাইতো আল্লাহ তায়ালা রোযাদারদের গভীর ভালবাসেন। রোযা সম্পর্কে আল্লাহ বলেন- “রোযা আমার জন্য, আর আমিই এর প্রতিদান দেব।”

আত্মিক উৎকর্ষ সাধন ঃ 

রোযার অন্যতম দিক হচ্ছে মানুষের আত্মার উৎকর্ষ সাধন। রোযা মানুষের অন্তরকে পরিষ্কার করে পবিত্রতা দান করে । রোযার প্রতিদান অসীম, এর প্রতিদান আল্লাহ নিজ হাতে দান করবেন । অন্যান্য ইবাদতের প্রতিদান সম্বন্ধে কোরআন- হাদিসে উল্লেখ আছে। শুধু রোযার প্রতিদান সম্বন্ধে বলা আছে— “রোযার প্রতিদান আমার নিজ হাতে দেবো।”

রোযা চরিত্র গঠন করে ঃ 

রোযার মাধ্যমে মানুষ চরিত্র গঠন করতে পারে । রোযাদার ব্যক্তি আল্লাহর প্রতি অধিক মনোনিবেশ করে যার ফলে সে যাবতীয় গুনাহর কাজে আল্লাহকে ভয় পায় । রোযাদার ব্যক্তি কোনো পাপ কাজ করতে পারে না । মানুষের চরিত্র গঠনে রোযা কল্যাণধর্মী ।

আরও পড়ুন :- বাংলা রচনা : বাংলা রচনা : ঈদে মিলাদুন্নবী ক্লাস ৬, ৭, ৮, ৯, ১০ 

রোযা নিয়মানুবর্তিতা শিক্ষা দেয় ঃ 

রোযার মাধ্যমে মানুষ কঠিন নিয়মানুবর্তিতা পালন করে । নির্দিষ্ট সময়ে ঘুমকে নষ্ট রে সেহরী খায় এবং সারা দিন উপুস থেকে সূর্যাস্তের পর পরম আনন্দ ভরে ইফতার করে । এতে কোনো নিয়মের হেরফের হয় না।

রোযা ভ্রাতৃত্ববোধের উদাহরণ ঃ 

রোযার মাধ্যমে মানুষের ভ্রাতৃত্ববোধ জাগ্রত হয় । ধনী ব্যক্তি উপবাসের মাধ্যমে গরিবের দুঃখ-কষ্ট অনাহারের কষ্ট উপলব্ধি করতে পারে। এতে একে অপরের সুখ-দুঃখ উপলব্ধি করে ভ্রাতৃত্ব বন্ধনের সৃষ্টি হয় ।

রোযা আদর্শ সমাজ গঠনে সাহায্য করে ঃ 

রোযা মানব সমাজ থেকে পাপাচার, অনাচার, ব্যভিচার, মিথ্যা, হটকারিতা, সুদ, ঘুষ, কালোবাজারী দূর করে একটি আদর্শ সমাজ গঠনের শিক্ষা দেয় । একমাত্র রোযাই মানুষের মন থেকে ক্রোধ, লোভ-লালসা, হিংসা, মিথ্যা, প্রতারণা দূর করতে পারে। রোযার শিক্ষা পালন করলে মুসলিম বিশ্বে আবার শান্তি ফিরে আসবে তাতে সন্দেহ নেই । 

উপসংহার ঃ 

রোযা জীবনকে সুন্দর ও কল্যাণময়ী করার গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে । তাই রোযা আমাদের ধর্মীয় ও সামাজিক জীবনে অপরিহার্য । প্রতিটি মানুষ রোযার শিক্ষাকে কাজে লাগিয়ে অনাবিল শান্তিতে বসবাস করতে পারে । মুসলমানদের রোযার শিক্ষা যথাযথ পালন করলে মুসলিম বিশ্বে আবার শান্তি ফিরে আসতে বাধ্য ।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

শিক্ষাগার ওয়েবসাইটের নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url