বাংলা রচনা : ঈদে মিলাদুন্নবী | ক্লাস ৬, ৭, ৮, ৯, ১০

উপস্থাপনা ঃ

আরবি চান্দ্র মাস রবিউল আউয়ালের বারো তারিখ বিশ্ব মুসলিমের নিকট পবিত্র দিন। এ দিনই মহানবী হযরত মুহাম্মদ (স) এই ধরাধামে আবির্ভূত হয়েছেন। আরও বিস্ময়ের ব্যাপার হচ্ছে ঐ নির্দিষ্ট দিনেই তার তিরোধান সংঘটিত হয়। এ কারণে দিনটি যুগপৎ আনন্দ ও বেদনার দিন হিসেবে বিশ্ববাসীর কাছে বিবেচিত হয়ে আসছে।

ঈদে মি লাদুন্নবী কী :

আরবী ‘ঈদ' অর্থ খুশি বা আনন্দ উৎসব। আর 'মিলাদ' অর্থ জন্মক্ষণ বা দিন। সুতরাং ঈদে মিলাদুন্নবী অর্থ হলো জন্মদিনের উৎসব। রাসূল (স) যে ১২ রবিউল আউয়াল এ পৃথিবীতে এসেছেন এবং যেদিন তিনি ইন্তেকাল করেছেন সেদিনটি ঈদ হিসেবে পরিগণিত।

মিলাদুন্নবী (স)-এর উদ্দেশ্য : 

যাঁর কল্যাণে বিশ্ব মুসলিম আল্লাহকে চিনেছে, মুক্ত হয়েছে সমস্ত শিরক হতে এবং খুঁজে পেয়েছে আখিরাতের মুক্তিপথ, সে মহান ব্যক্তিত্বের অনুসৃত পথে চলার বারতা নিয়ে আসে এ দিনটি।

আরও পড়ুন :  ঈদ উৎসব বাংলা রচনা - ক্লাস 6, 7, 8, 9, 10

মিলাদুন্নবী উদযাপন : 

এদিন সকল মুসলমানের হৃদয় উচ্ছ্বসিত হয়ে গাম্ভীর্যের সাথে দিবসটি উদযাপিত হয় প্রতিটি মুসলিম ঘরে, প্রতিটি মুসলিম সমাজে ও রাষ্ট্রে। এ দিন আসলে মানব মনে ইসলাম সম্পর্কে জানার কৌতুহল বেড়ে যায় ।

সরকারিভাবে মিলাদুন্নবী ঃ 

এ দিনটি থাকে সরকারি ছুটির দিন। এদিন রাষ্ট্রীয় পতাকা উত্তোলন করা হয় সকল সরকারি ভবনে । পবিত্র কালেমা ও কুরআনের বাণীতে সজ্জিত করা হয় শহরের প্রধান প্রধান সড়ক ও উল্লেখযোগ্য স্থানগুলো ।

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও সংগঠন : 

বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক এবং ধর্মীয় সংগঠন মহানবীর জীবন ও কর্মধারা নিয়ে আলোচনা সভার আয়োজন করে । অনেকে কালেমা খচিত প্লেকার্ড নিয়ে বর্ণাঢ্য র‍্যালিও বের করে ।

সেমিনার-সিম্পোজিয়াম : 

বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন এদিন রাসূল (স)-এর কর্মময় জীবনাদর্শ নিয়ে সেমিনার- সিম্পোজিয়ামের আয়োজন করে। আলোচনা হয় তাঁর জীবনাদর্শ নিয়ে । তারা ভ্রাতৃত্বের বন্ধনে আবদ্ধ হওয়ার শিক্ষা গ্রহণ করে ।

আরও পড়ুন : পবিত্র মহররম - বাংলা প্রবন্ধ রচনা 

প্রচার মাধ্যম : 

রাষ্ট্রীয় প্রচার মাধ্যম বেতার ও টেলিভিশন এ দিন বিশেষ অনুষ্ঠানমালার আয়োজন করে এবং এ দিবসটি উদযাপনের খবর গুরুত্বের সাথে প্রচার করে । সংবাদপত্রগুলো এ উপলক্ষে বের করে বিশেষ ক্রোড়পত্র ।

সাধারণ সমাজে মিলাদুন্নবী : 

সাধারণ সমাজে মিলাদুন্নবী বলতে শুধুমাত্র হযরত মুহাম্মদ (স)-এর জন্মবৃত্তান্ত পাঠকেই বুঝানো হয়। বাস্তবে তারা এর সঠিক উদ্দেশ্য ও তাৎপর্য বুঝতে সক্ষম হয় না ।

ঈদে মিলাদুন্নবীর গুরুত্ব ও তাৎপর্য ঃ 

মহানবী হযরত মুহাম্মদ (স) হচ্ছেন সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ মানুষ। তিনি ছিলেন একাধারে সমাজপতি, সমরনায়ক, রাজনীতিবিদ, অর্থনীতিবিদ এবং একজন শ্রেষ্ঠ বিজ্ঞানীও বটে । যাকে সৃষ্টি করা না হলে পুরো দুনিয়াটাই সৃষ্টি করা হতো না । 

সেই মহামানবের আবির্ভাব ও তিরোধান দিবস হলো ১২ রবিউল আউয়াল । তাই সঙ্গত কারণেই ঈদে মিলাদুন্নবী গুরুত্ব ও তাৎপর্য অপরিসীম ।

মিলাদুন্নবীর শিক্ষা : 

ঈদে মিলাদুন্নবী জাতীয় জীবনে প্রত্যক্ষ প্রভাব ফেলে। এদিন সমগ্র মুসলমান এক কাতারে শামিল হয় ৷ এদিনটি ভ্রাতৃত্বপ্রেমের বন্ধনে আবদ্ধ হতে শিক্ষা দেয় ।

উপসংহার ঃ 

ঈদে মিলাদুন্নবী জাতিসত্তার স্বাতন্ত্র্য ও স্বকীয়তা তুলে ধরে। ইসলামের যথার্থ অনুশীলন ও ইসলামী বিধান প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে তারা নবজাগরণের শপথ গ্রহণ করে। 

তবে যেদিন সারা বিশ্বের মুসলিম একতাবদ্ধ হয়ে রাসূল (স)-এর একনিষ্ঠ অনুসারী হয়ে ইসলামী সমাজ ও কল্যাণমূলক রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করতে পারবে, সেদিনই কেবল ‘ঈদে মিলাদুন্নবী' উদযাপন সত্যিকার অর্থে সার্থক হবে ।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

শিক্ষাগার ওয়েবসাইটের নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url