ক্রোমোজোম কাকে বলে? কয় প্রকার। ক্রোমোজোমের গঠন, কাজ

সংজ্ঞা : নিউক্লিয়াসের অভ্যন্তরীন গাঢ় বর্ণ ধারণকারী ক্রোমাটিন তন্তুটি কোষ বিভাজনের শুরুতে ভেঙ্গে যখন নির্দিষ্ট সংখ্যক খণ্ডে বিভক্ত হয়, তখন তাকে ক্রোমোজোম বলে।

ক্রোমোজোমের উৎপত্তি :- 

গ্রীক শব্দ Chromos (বর্ণ) Soma (বস্তু) থেকে ক্রোমোজোম (Chromosome) শব্দটি এসেছে— যার আভিধানিক অর্থ বর্ণযুক্ত বস্তু। ডব্লিও ওয়েলডেয়ার ১৮৮৮ খ্রিস্টাব্দে ক্রোমোজোম শব্দটি ব্যবহার করেছিলেন।

ক্রোমোজোমের প্রকারভেদঃ 

সেন্ট্রোমিয়ারের সংখ্যা অনুযায়ী ক্রোমোসোম ৫ প্রকার; যথা—

১। মনোসেন্ট্রিক (Monocentric) : 

১ সেন্ট্রোমিয়ার বিশিষ্ট ক্রোমোসোমকে মনোসেন্ট্রিক ক্রোমোসোম বলে।

২। ডাইসেন্ট্রিক (Dicentric) : 

২ সেন্ট্রোমিয়ার বিশিষ্ট ক্রোমোসোমকে ডাইসেন্ট্রিক ক্রোমোসোম বলে।

৩। পলিসেন্ট্রিক (Polycentric) : 

২ এর অধিক সেন্ট্রোমিয়ার বিশিষ্ট ক্রোমোসোমকে পলিসেন্ট্রিক ক্রোমোসোম বলে ।

৪। ডিফিউজড (Diffused) : 

ক্রোমোসোমে সেন্ট্রোমিয়ার নির্দিষ্ট স্থানে সুস্পষ্টভাবে থাকে না।

৫। অ্যাসেন্ট্রিক (Acentric) : 

এক্ষেত্রে ক্রোমোসোমের কোনো সেন্ট্রোমিয়ার থাকে না। তখন তাকে অ্যাসেন্ট্রিক ক্রোমোসোম বলে । 

আরও পড়ুন :- নিউক্লিয়াস কাকে বলে? নিউক্লিয়াসের গঠন, কাজ, চিত্র ও অংশ 

সেন্ট্রোমিয়ারের অবস্থান অনুসারে ক্রোমোজোমকে ৪ প্রকার। যথাঃ 

(i) মেটাসেন্ট্রিক (Metacentric) : 

ক্রোমোজোমের বাহুর মাঝ বরাবর সেন্ট্রোমিয়ার থাকলে তাকে মেটাসেন্ট্রিক বলে । এটি দেখতে ‘V’ আকৃতির।

(ii) সাবমেটাসেন্ট্রিক (Submetacentric) : 

ক্রোমোজোমের বাহুর মাঝ বরাবর অবস্থানের যেকোনো পাশে সামান্য সরে সেন্ট্রোমিয়ার অবস্থান করলে তাকে সাবমেটাসেন্ট্রিক বলে । এটি দেখতে ‘L’ আকৃতির।

(iii) অ্যাক্রোসেন্ট্রিক (Acrocentric) : 

সেন্ট্রোমিয়ার ক্রোমোজোমের বাহুর একদিকে প্রান্তের প্রায় কাছাকাছি অবস্থান করলে তাকে অ্যাক্রোসেন্ট্রিক বলে । একে ‘J’ আকৃতির দেখায়। 

(iv) টেলোসেন্ট্রিক (Telocentric) : 

সেন্ট্রোমিয়ারটি ক্রোমোজোমের বাহুর একেবারে প্রান্তসীমায় থাকলে তাকে টেলোসেন্ট্রিক বলে । একে “I” আকৃতির দেখায়।

ক্রোমোজোমের গঠন :-

ক্রোমোজোমের ভৌত গঠন -

একটি আদর্শ ক্রোমোজোমে প্রধানত নিম্নলিখিত অংশগুলো পরিলক্ষিত হয়; 

১. পেলিকল (Pellicle) : 

ক্রোমোজোমের বাহ্যিক পাতলা আবরণকে পেলিকল বলে।

২. মাতৃকা (Matrix): 

পেলিকলের অভ্যন্তরে ঘন জেলির ন্যায় তরলবস্তুকে মাতৃকা বলে ।

৩. ক্রোমাটিড (Chromatid) : 

প্রতিটি ক্রোমোজোম দু'টি করে সূক্ষ্ম সূতা দ্বারা গঠিত, এদেরকে ক্রোমাটিড বলে।

৪. ক্রোমোনিমা (Chromonema) : 

দুটি ক্রোমোটিডের প্রত্যেকটিকে আলাদা আলাদাভাবে ক্রোমোনিমা বলে ।

৫. ক্রোমোমিয়ার (Chromomere) : 

প্রতিটি ক্রোমোনিয়া অসংখ্য ক্ষুদ্র-ক্ষুদ্র পুতির মতো অংশ নিয়ে গঠিত, এই দানার মত অংশগুলোকে ক্রোমোমিয়ার বলে ।

৬. সেন্ট্রেমিয়ার (Centromere) : 

প্রতিটি ক্রোমোজোমে একটি গোলাকার সংকুচিত স্থান থাকে, তাকে সেন্ট্রেমিয়ার বা মুখ্য সংকোচন বলে।

৭. গৌণ সংকোচন (Secondary Constriction) : 
সেন্ট্রেমিয়ার ছাড়া ক্রোমোজোমের এক বা উভয় বাহুতে আরো একটি সংকোচনকে গৌণ সংকোচন বলে ।

৮. স্যাটেলাইট (Satelite) : 

গৌণ সংকোচন ক্রোমোজোমের একটি ক্ষুদ্র অংশকে যখন একটি সূক্ষ্ম তন্তুর দ্বারা সংযুক্ত করে তখন ক্ষুদ্র অংশটিকে স্যাটেলাইট বলে। স্যাটেলাইট যুক্ত ক্রোমোজোমকে স্যাট (SAT) ক্রোমোজোম বলে ।

৯. টেলোমিয়ার (Telomere) : 

ক্রোমোজোমের দু'বাহুর শেষ প্রান্তকে টেলোমিয়ার বলে ।

১০. ইউক্রোমাটিন (Euchromatine) : 

রঞ্জিত করলে ক্রোমোজোমের যে অংশ হালকা রং ধারণ করে, তাকে ইউক্রোমাটিন বলে ।

১১. হেটারোক্রোমাটিন (Heterochromatine) : 
রঞ্জিত করলে ক্রোমোজোমের যে অংশ গাঢ় রং ধারণ করে, তাকে হেটারোক্রোমাটিন বলে।

আরও পড়ুন :- লাইসোজোম কাকে বলে?লাইসোজোম এর গঠন,কাজ। আত্মঘাতী থলি

ক্রোমোজোমের রাসায়নিক গঠন :-

  • ১। ক্রোমোজোম মূলত নিউক্লিওপ্রোটিনে গঠিত। 
  • ২।  দু'ধরনের নিউক্লিক অ্যাসিড যথা— DNA এবং RNA
  • ৩। দু'ধরনের প্রোটিন যথা- হিস্টোন এবং ক্রোমোজোমিন । DNA ও হিস্টোনের পরিমাণ যথাক্রমে ৩৫% ও ৫৫%।
  • ৪। কয়েক প্রকার ধাতব আয়ন যথা – ক্যালসিয়াম, লৌহ, ম্যাগনেসিয়াম ইত্যাদি।

ক্রোমোজোমের কাজ :-

  • ১. DNA বা জীন অণু ধারণ করা।
  • ২. প্রোটিন সংশ্লেষণ করা ।
  • ৩. প্রকরণ, মিউটেশন ও অভিব্যক্তিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করা ।
  • ৪। সেক্স ক্রোমোজোম লিঙ্গ নির্ধারণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।
  • ৫। বংশগতির বাহক জিন জীবের জীবনের  ব্লু প্রিন্ট হিসেবে কাজ করে। 

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

শিক্ষাগার ওয়েবসাইটের নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url