বীরশ্রেষ্ঠ নূর মোহাম্মদ শেখ - রচনা

ভূমিকা: 

দখলদার পাকিস্তানিদের হাত থেকে প্রাণপ্রিয় মাতৃভূমিকে মুক্ত করার জন্য ১৯৭১ সালে এ দেশের ত্রিশ লক্ষ মানুষ প্রাণ দিয়েছিল। এর মধ্যে দেশের জন্য জীবন উৎসর্গকারী সাত জন বীর মুক্তিযোদ্ধাকে সরকার ‘বীরশ্রেষ্ঠ' খেতাবে ভূষিত করে। নূর মোহাম্মদ শেখ তাঁদের মধ্যে একজন।

জীবনবৃত্তান্ত: 

নূর মোহাম্মদ শেখ ১৯৩৬ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর জন্মস্থান নড়াইলের মহিষখোলা গ্রাম । তিনি ছিলেন বাবা-মায়ের একমাত্র সন্তান। ছোটবেলা থেকেই নাটক, থিয়েটার আর গানের প্রতি ছিল তাঁর প্রবল অনুরাগ। কিশোর বয়সেই বাবা-মা হারা হন তিনি। বড় হয়ে তিনি তৎকালীন ইস্ট পাকিস্তান রাইফেলসে যোগ দেন ।

মুক্তিযুদ্ধে অবদান: 

১৯৭১ সালের মার্চ মাসে গ্রামের বাড়িতে ছুটি কাটাতে এসে নূর মোহাম্মদ মুক্তিবাহিনীতে যোগ দেন। তিনি (যশোর) ৮ নম্বর সেক্টরে যুদ্ধরত ছিলেন। ৫ সেপ্টেম্বর ল্যান্স নায়েক নূর মোহাম্মদ শেখ ও তাঁর সাথি মুক্তিযোদ্ধাদের পাকিস্তানি সৈন্যরা তিন দিক থেকে ঘিরে ফেলে। 

আরও পড়ুন :- একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা বা বীরশ্রেষ্ঠ মুন্সী আব্দুর রউফ - রচনা

নূর মোহাম্মদের দলটি পাকিস্তানি সেনাদের আক্রমণ প্রতিহত করে। তবে একপর্যায়ে তিনি শত্রুর মর্টারের গোলায় আহত হন। এরপরও সহযোদ্ধাদের নিরাপদে সরে যাওয়ার নির্দেশ দিয়ে একাই শত্রুদের প্রতিরোধ করতে থাকেন ।

মৃত্যু: 

অবিরাম গুলি চালাতে চালাতে একসময় মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন নূর মোহাম্মদ । যশোরের শার্শা উপজেলার সীমান্তবর্তী কাশীপুর গ্রামে চিরনিদ্রায় শায়িত আছেন এই অকুতোভয় বীর। মুক্তিযুদ্ধে এই অসীম সাহসিকতার স্বীকৃতিস্বরূপ বাংলাদেশ সরকার নূর মোহাম্মদ শেখকে ‘বীরশ্রেষ্ঠ' উপাধিতে ভূষিত করে।

উপসংহার: 

বীরশ্রেষ্ঠ নূর মোহাম্মদ শেখ আমাদের অহংকার, আমাদের অনুপ্রেরণা। মুক্তিযুদ্ধে অবদান ও অসামান্য আত্মত্যাগের জন্য দেশ তাঁকে চিরকাল মনে রাখবে।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

শিক্ষাগার ওয়েবসাইটের নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url