শীতের সকাল - বাংলা রচনা : Class 3, 4, 5

সূচনা: 

বাংলাদেশ ঋতুবৈচিত্র্যের দেশ। ঋতুচক্রের পালায় বছরের শেষদিকে কনকনে ঠান্ডা আর কুয়াশা নিয়ে আসে শীত ।

শীতের সকালের প্রকৃতি: 

শীতের সকাল থাকে কুয়াশার চাদরে ঢাকা। কুয়াশার আবরণ সরিয়ে রোদের দেখা মিলতে সময় লাগে ৷ বাইরের কনকনে শীতের জন্য লেপের আরাম ছেড়ে উঠতে ইচ্ছা হয় না। পথে মানুষের চলাচল থাকে কম ।

শীতের সকালে গ্রামগঞ্জ: 

তীব্র শীত উপেক্ষা করে খুব সকালেই গ্রামের মানুষ মাঠের কাজে যায়। বধূরা খুব ভোরে উঠে ঘরকন্নার কাজ শুরু করে। গাছিরা খেজুর গাছ থেকে নামায় রসের হাড়ি। ছোট ছোট ছেলে-মেয়ের দল মজা করে খেজুরের রস খায়। 

অনেকে রোদ না ওঠা পর্যন্ত আগুন পোহায়। বাগান আলো করে ফোটে গাঁদা, কলাবতী, ডালিয়া, চন্দ্রমল্লিকা। বনে, পথে ও মাঠে দেখা যায় পলাশ, শিমুলের মত চোখ জুড়ানো ফুল ।

আরও পড়ুন :- শীতকাল - রচনা Class 3, 4, 5

শীতের সকালে শহর: 

জীবনের প্রয়োজনে ব্যস্ততার মধ্য দিয়েই শুরু হয় শহরের শীতের সকাল । তবে সকালের প্রথম দিকে পথে ভিড় কম থাকে । ঘন কুয়াশা থাকলে গাড়িগুলো হেডলাইট জ্বালিয়ে চলে। রাস্তার মোড়ের চায়ের দোকানগুলোতে জমে ওঠে ভিড় শীতবস্ত্রের অভাবে শহরের ফুটপাত ও বস্তির গরিব-দুঃখী মানুষেরা খুবই কষ্ট পায় ।

শীতের পিঠা-পায়েস: 

শহরের বাড়ি বা ফ্ল্যাটে পিঠার আয়োজনের চল খুব কম। শখ করে কোন কোন গৃহিণী পিঠা বানান। তবে অনেক বাড়িতেই গ্রাম থেকে পিঠাপুলি আসে। এ ছাড়া ফুটপাতের দোকান থেকে শুরু করে দামি রেস্তোরাঁয় মেলে ভাপা, চিতই, পুলি, পাটিসাপটা ইত্যাদি মজাদার পিঠা। এতে করে শহরের মানুষও সকালের নাশতায় শীতের পিঠার স্বাদ নিতে পারেন।

উপসংহার: 

সূর্যের আলো ছড়িয়ে পড়তেই ধীরে ধীরে কেটে যায় শীতের সকালের জড়তা। ক্রমে রোদ ছড়িয়ে প্রকৃতির উত্তাপ বাড়তে থাকে। শীতের কামড় জয় করে শুরু হয় কর্মমুখর জীবনের ব্যস্ততা ।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

শিক্ষাগার ওয়েবসাইটের নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url