জীববিজ্ঞানের সংজ্ঞা এবং জীববিজ্ঞানের শাখা কয়টি ও কি কি

বিজ্ঞানের যে শাখায় জীবের গঠনপ্রকৃতি, জীবনবৃত্তান্ত, জৈবিক ক্রিয়াকলাপ প্রভৃতি দিক সম্পর্কে আলোচনা, পর্যালোচনা ও গবেষণা করা হয় তাকে জীববিজ্ঞান বা Biology বলে।

জীববিজ্ঞানের মৌলিক শাখাসমূহ :

জীবের ধরণ অনুযায়ী জীববিজ্ঞানকে দুটি প্রধান শাখায় বিভক্ত করা হয়েছে। যথা - ১. উদ্ভিদবিজ্ঞান (Botany)  ২. প্রাণিবিজ্ঞান (Zoology)

উদ্ভিদবিজ্ঞান (Botany) : জীবজ্ঞিানের যে শাখায় উদ্ভিদের গঠনপ্রকৃতি, জীবনবৃত্তান্ত, জৈবিক ক্রিয়াকলাপ প্রভৃতি দিক সম্পর্কে আলোচনা, পর্যালোচনা ও গবেষণা করা হয়, তাকে উদ্ভিদবিজ্ঞান বা Botany বলে।

প্রাণিবিজ্ঞান (Zoology) : জীববিজ্ঞানের যে শাখায় প্রাণির গঠনপ্রকৃতি, জীবনবৃত্তান্ত, জৈবিক ক্রিয়াকলাপ প্রভৃতি দিক সম্পর্কে আলোচনা, পর্যালোচনা ও গবেষণা করা হয়, তাকে প্রাণিবিজ্ঞান বা Zoology বলে । 

মূল বিষয়বস্তুর ভিত্তিতে জীববিজ্ঞানকে তিনটি প্রধান শাখায় ভাগ করা হয়েছে। যথা -

ক. মৌলিক শাখা (Pure or Basic branch)

খ. ফলিত শাখা (Applied branch)

গ. বিশেষ শাখা (Special branch)

আরও পড়ুন :- জীব কাকে বলে কত প্রকার ও কি কি? জীবের সাধারণ বৈশিষ্ট্য 

মৌলিক জীব বিজ্ঞানের শাখা :- 

জীব ও জীবদেহের কোন্ দিক নিয়ে __আলোচনা করা হচ্ছে তার উপর ভিত্তি করে জীববিজ্ঞানকে কয়েকটি মৌলিক শাখায় ভাগ করা হয়েছে।

১।  অংগসংস্থানবিদ্যা বা মরফোলজি (Morphology) : জীববিজ্ঞানের এ শাখায় জীবের বাহ্যিক ও অভ্যন্তরীণ গঠন সম্পর্কে আলোচনা করা হয় ।

২। কোষবিদ্যা বা সাইটোলজি (Cytology) : এ শাখায় জীবকোষের গঠন ও কাজ নিয়ে বিশদভাবে আলোচনা করা হয়।

৩।  শারীরবিদ্যা বা ফিজিওলজী (Physiology) : জীবদেহের বৃদ্ধি, শ্বসন, রেচন, সালোকসংশ্লেষণ ইত্যাদি জৈৰিক প্রক্রিয়া এ শাখার আলোচনার বিষয়বস্তু ।

৪। শ্রেণীবিন্যাস বিদ্যা বা ট্যাক্সোনমি (Taxonomy) : এ শাখায় বিভিন্ন জীব সনাক্তকরণ, নামকরণ ও ভিন্ন ভিন্ন দল বা উপদলে বিভক্তিকরণ সম্পর্কে আলোচনা করা হয় ।

৫।  বাস্তুবিদ্যা বা ইকোলজি (Ecology) : পরিবেশের সাথে জীবের সম্পর্ক, জীবের ওপর পরিবেশের প্রভাব এবং বিভিন্ন উদ্ভিদ ও প্রাণীর মধ্যে বিদ্যমান পারস্পরিক সমন্বয় ইত্যাদি নিয়ে জীববিজ্ঞানের এ শাখায় আলোচনা ও গবেষণা করা হয়।

৬। হিসটোলজি (Histology) বা টিস্যুতত্ত্ব : এ শাখায় জীবদেহের বিভিন্ন টিস্যুর আণুবীক্ষণিক গঠন, অবস্থান ও কাজ নিয়ে আলোচনা করা হয়।

৬। জেনেটিক্স (Genetics) বা বংশগতি বিদ্যা : জীবের বৈশিষ্ট্য কিভাবে মাতাপিতা থেকে সন্তানে উত্তরিত হয় এবং কিভাবে তা নিয়ন্ত্রণ ও উন্নয়ন করা যায় এগুলো আলোচনা ও গবেষণা করাই এ শাখার কাজ ।

৭। ইকোলজি (Ecology) বা বাস্তু বিদ্যা : এ শাখায় কোন জীব বা জীব সম্প্রদায়ের উপর তার চারপাশের পরিবেশের প্রভাব সম্পর্কে আলোচনা করা হয় ।

৮। ইভোলিউশন (Evolution) বা অভিব্যক্তি ঃ জীববিজ্ঞানের এ শাখায় জীবের উৎপত্তি ও ক্রমবিকাশ নিয়ে আলোচনা করা হয় ।

আরও পড়ুন :- জীববিজ্ঞান কাকে বলে? জীববিজ্ঞান পাঠের প্রয়োজনীয়তা

ফলিত জীববিজ্ঞানের শাখা :-

১। চিকিৎসাবিদ্যা ঃ মানবদেহের বিভিন্ন রোগ নির্ণয় ও চিকিৎসা পদ্ধতি সংক্রান্ত বিজ্ঞান । 

২। কৃষিবিজ্ঞান :  আধুনিক কৃষি পদ্ধতি, উপকরণ ও যন্ত্রপাতির ব্যবহার সংক্রান্ত বিজ্ঞান ।

৩। সুপ্রজননবিদ্যা ঃ  জীবের কৃত্রিম প্রজনন সংক্রান্ত বিজ্ঞান ।

৪। বনবিজ্ঞান : রক্ষণাবেক্ষণ ও পরিচর্যা সংক্রান্ত বিজ্ঞান ।

৫। মৎসবিদ্যা : আধুনিক পদ্ধতিতে মৎস্য প্রতিপালন সংক্রান্ত বিজ্ঞান ।

৬। কীটতত্ত্ব : পোকা নিয়ন্ত্রণের আধুনিক পদ্ধতি, উপকরণ ও যন্ত্রপাতির ব্যবহার সংক্রান্ত বিজ্ঞান । 

৭। পশুপালনবিদ্যা : বিভিন্ন গবাদিপশু পালন সম্পর্কিত আধুনিক পদ্ধতি সংক্রান্ত বিজ্ঞান ।

জীববিজ্ঞানের বিশেষ শাখা :-

১। ফাইকোলজি : শুধুমাত্র শৈবাল সম্বন্ধে আলোচনা করা হয় ।

২। মাইকোলজি : শুধুমাত্র ছত্রাক সম্বন্ধে আলোচনা করা হয় ।

৩। ভাইরোলজি : কেবলমাত্র ভাইরাস সম্বন্ধে আলোচনা করা হয় । 

৪। হেলমিনথোলজি :  কেবলমাত্র কৃমি সম্বন্ধে আলোচনা করা হয় ।

৫। এনটোমোলজিঃ কেবলমাত্র কীটপতঙ্গ নিয়ে আলোচনা করা হয় ।

উপসংহার : উপরে উল্লেখিত বিভাগগুলোর প্রতিটির মধ্যে আরো অনেক উপবিভাগ বা শাখা-প্রশাখা আছে। আগেই বলা হয়েছে জীববিজ্ঞানে গবেষণা এখন ব্যাপকভাবে হচ্ছে। তার দরুণ এর শাখা-প্রশাখাও দিনদিন বাড়ছে।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

শিক্ষাগার ওয়েবসাইটের নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url