নিফাকের কুফল ও পরিণতি সম্পর্কে - ১০ টি বাক্য

উপস্থাপনা : নেফাকী আচরণ ইসলামী আদর্শের সাথে সাংঘর্ষিক। তাই মুনাফিকরা ইসলামের চিরশত্রু। নেফাকী আচরণ সামাজিক জীবনে মারাত্মক ক্ষতিসাধন করে। নিম্নে কুরআন ও হাদীসের আলোকে এ ব্যাপারে আলোচনা পেশ করা হলো।

নিফাকের কুফল ও পরিণতি সম্পর্কে - ১০ টি বাক্য :- 

নেফাক এমন এক ব্যাধি, যার কুফল গোটা সমাজকে কলুষিত করে তোলে। সামাজিক জীবনে এর কুফল অত্যন্ত মারাত্মক এবং মানবতা বিধ্বংসী। নিম্নে এর কুফলের কয়েকটি দিক তুলে ধরা হলো। যেমন-

১. নেফাকী চরিত্র তথা মিথ্যাচার, খেয়ানত, ঝগড়া, অশ্লীল উক্তি, ওয়াদা ভঙ্গ ইত্যাদি বিষয় স্বাভাবিকভাবেই সামাজিক জীবনে অশান্তি ডেকে আনে।

২. নেফাক সামাজিক কাঠামো ও বন্ধন ধ্বংস করে দেয়।

৩. সামাজিক শৃঙ্খলা ও নীতিবোধ ধ্বংস করে কোন্দল উসকিয়ে দেয়।

৪. মানুষের পারস্পরিক সৌহার্দ্য, ভ্রাতৃত্ববোধ ও মানবীয় মূল্যবোধকে বিনষ্ট করে সমাজজীবনে নৈরাজ্য সৃষ্টি করে।

৫. জাতিধর্ম নির্বিশেষে হিংসাবিদ্বেষ সৃষ্টি করে ।

৬. নেফাকী আচরণ রাষ্ট্রের সার্বভৌমত্বের হুমকি হিসেবে মাথা চাড়া দিয়ে ওঠে। 

৭. নেফাক একজন মানুষের নৈতিক চরিত্রের ভিত্তিকে উপড়ে ফেলে ।

৮. নেফাকী আচরণ কখনো কখনো রাষ্ট্রীয় সার্বভৌমত্বের প্রতি হুমকি হয়ে দাঁড়ায়। 

৯. নেফাক এতবেশি জঘন্য দোষ, এটি একটি বিশাল সমাজব্যবস্থা ধ্বংসের জন্য একাই যথেষ্ট। যেমন বনি ইসরাঈলের সামেরী এর উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত ।

১০. নেফাকী চরিত্রের কারণে ইসলামের প্রচার প্রসার ও প্রতিষ্ঠার পথ রুদ্ধ হয়ে যায়। কারণ এদের লোক দেখানো আচরণ অন্যদের মনে প্রভাব বিস্তার করে। ফলে অন্যরাও ইসলাম গ্রহণ করতে দ্বিধাদ্বন্দ্বে পতিত হয়।

উপসংহার :- 

নেফাকের কুফল যেহেতু গোটা মানবসমাজকে কলুষিত করে, সেহেতু আমাদের উচিত নেফাকী আচরণ পরিত্যাগ করা এবং অন্যদের নেফাকী আচরণের ব্যাপারে সজাগ ও সতর্ক থাকা।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

শিক্ষাগার ওয়েবসাইটের নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url