রচনা : ঐতিহাসিক স্থান - ময়নামতি

সূচনা: 

বাংলাদেশের কুমিল্লায় অবস্থিত একটি ঐতিহাসিক স্থান হলো ময়নামতি। এ যাবৎ আবিষ্কৃত লালমাই অঞ্চলের প্রাচীনতম সভ্যতার নিদর্শন হলো ময়নামতি প্রত্নস্থল। বাংলাদেশের যেসব এলাকায় প্রাচীনকালে সভ্যতা বিকাশ লাভ করেছিল তার মধ্যে ময়নামতি অত্যতম । বৌদ্ধ সভ্যতা ও হিন্দু ধর্মের বেশ কিছু নিদর্শন এখানে পাওয়া গিয়েছে।

অবস্থান ও ইতিহাস: 

কুমিল্লা শহর থেকে ৮ কিলোমিটার পশ্চিমে কোটবাড়ি এলাকায় ময়নামতি আনন্দবিহার অবস্থিত। ময়নামতি আনন্দবিহার আবিষ্কৃত হয় ১৯৫৫ সালে। বিহারটি নির্মিত হয় অষ্টম শতাব্দীতে। রাজা মানিকচন্দ্রের স্ত্রী ময়নামতির নামানুসারে এর নাম রাখা হয় । অষ্টম শতাব্দীর কোনো এক সময় প্রথম দেববংশের তৃতীয় শাসক আনন্দ দেব বিহারটি নির্মাণ করেন।

আবিষ্কৃত নিদর্শনসমূহ: 

আনন্দবিহারে বৌদ্ধ সভ্যতা ও হিন্দু ধর্মের অনেক নিদর্শন পাওয়া গেছে। এগুলো সংরক্ষণের জন্য এখানে একটি জাদুঘর প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। বিহারের বাইরের প্রাচীর ও ভেতরের বারান্দার দেয়াল নকশা করা ইট দিয়ে তৈরি। এখানে অসংখ্য রৌপ্য মুদ্রা, ব্রোঞ্জমূর্তি, পোড়ামাটির ভাস্কর্য, ফলক্ এবং মৃৎপাত্রসহ অনেক কিছু পাওয়া গেছে।

আরও পড়ুন :- পাহাড়পুর - ঐতিহাসিক স্থান বা দর্শনীয় স্থান : রচনা

ঐতিহাসিক নিদর্শন: 

আনন্দবিহার বাংলার প্রাচীন ইতিহাসের এক গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। বিশ্বের গুরুত্বপূর্ণ পুরাকীর্তি ও নিদর্শনগুলোর অন্তর্ভুক্ত এই বিহারটি। এ ছাড়াও শালবন বিহার, ময়নামতি জাদুঘর, কৌটিলা মুড়া, রূপবান মুড়া প্রভৃতি খননকালে প্রাচীনকালে অনেক মূল্যবান বস্তুর সন্ধান পাওয়া গেছে।

উপসংহার: 

বিশ্বের প্রতিটি দেশের প্রত্নতাত্ত্বিক স্থান ও পুরাকীর্তিগুলো - সে দেশের ইতিহাসের সাক্ষ্য বহন করে। ময়নামতি তেমনি একটি নিদর্শন। এখান থেকে বাংলার প্রাচীন ইতিহাসের বিষয়ে অনেক কিছু জানা গেছে।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

শিক্ষাগার ওয়েবসাইটের নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url