রচনা : বাংলাদেশের নদ নদী (Class 2, 3, 4, 5)

ভূমিকা :- 

বাংলাদেশ নদীমাতৃক দেশ। এদেশের বুকের ওপর জালের মতো ছড়িয়ে আছে ছোট-বড় অসংখ্য নদ-নদী ।

বাংলাদেশের প্রধান প্রধান নদী :- 

পদ্মা, মেঘনা, যমুনা, ব্রহ্মপুত্র ও কর্ণফুলি বাংলাদেশের প্রধান নদ-নদী।

পদ্মা :- 

উত্তর ভারতের হিমালয়ের গঙ্গোত্রী নামক হিমবাহ হতে উৎপত্তি হয়ে ভারতের ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়ে রাজশাহী জেলার দক্ষিণ-পশ্চিম প্রান্তে এসে পদ্মা নাম ধারণ করে আমাদের দেশে প্রবেশ করেছে। ভারতের অংশটুকুর নাম গঙ্গা ।

মেঘনা :- 

মেঘনা নদী নাগা-মনিপুর জলবিভাজিকা থেকে উৎপন্ন হয়ে সিলেট সীমান্ত দিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে। পরে পদ্মা ও যমুনার সাথে মিলিত হয়ে মেঘনা নামেই বঙ্গোপসাগরে পড়েছে।

যমুনা :- 

যমুনা বাংলাদেশের একটি অন্যতম প্রধান নদী। এটি ব্রহ্মপুত্র নদের শাখা নদী। এটি উৎপত্তিস্থল থেকে দক্ষিণে অগ্রসর হয়ে গোয়ালন্দের কাছে পদ্মার সাথে মিলিত হয়ে বঙ্গোপসাগরে পড়েছে। 

ব্রহ্মপুত্র :- 

হিমালয় পর্বতের কৈলাশ শৃঙ্গের একটা হিমবাহ থেকে ব্রহ্মপুত্র নদ উৎপন্ন হয়ে তিব্বত ও আসামের ভেতর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে এবং রংপুর জেলার কুড়িগ্রামের কাছে এসে বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে। 

আরও পড়ুন :- বাংলাদেশের ষড়ঋতু - রচনা : ক্লাস 3, 4, 5

কর্ণফুলী :- 

কর্ণফুলি বাংলাদেশের অন্যতম খরস্রোতা নদী। এটা লুসাই পাহাড় থেকে উৎপন্ন হয়ে পার্বত্য চট্টগ্রাম ও চট্টগ্রামের মধ্য দিয়ে প্রবাহিত হয়ে বঙ্গোপসাগরে পড়েছে।

নদীর উপকারিতা :- 

নদী আমাদের অনেক উপকার করে। আমরা নদীর পানি পান করি এবং গোসল করি। খরা মৌসুমে নদী থেকে জলসেচের দ্বারা শস্য উৎপাদন করা হয়।

নদীর অপকারিতা :- 

নদী আমাদের কিছুটা অপকারও করে থাকে। অতিবর্ষণ হলে কোনো কোনো নদীতে বন্যা হয় । এছাড়া নদী ভাঙনের ফলে প্রতিবছর অসংখ্য পরিবারকে গৃহহীন ও ভূমিহীন হতে হয়। 

উপসংহার :- 

নদ-নদীর অবদানেই আমাদের এ বাংলাদেশ হয়েছে সুজলা-সুফলা-শস্য-শ্যামলা তাই এদেশের মাটি, মানুষ ও অর্থনৈতিক সম্ভাবনার সঙ্গে নদ-নদীর সম্পর্ক অত্যন্ত গভীর।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

শিক্ষাগার ওয়েবসাইটের নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url