(খাম সহ) ঐতিহাসিক স্থানের বর্ণনা দিয়ে বন্ধুর কাছে পত্র

 আল্লাহ মেহেরবান 

বিক্রমপুর, ঢাকা
তারিখ : ০৮. ০২. ২৪

প্রিয় সোহেল,

তোমার চিঠি পেয়ে যেন আকাশ থেকে পড়লাম। কারণটা বুঝেছ নিশ্চয়। কতদিন পরে লিখলে চিন্তা করে দেখ তো-প্ৰায় ছমাস! যাহোক, গত গ্রীষ্মের ছুটিটা কি করে কাটালাম শুনতে চেয়েছ; তবে শোন— আমি গিয়েছিলাম মুর্শিদাবাদ। স্থানটির নাম শুনে তুমি হয়তো বুঝতে পেরেছ–আমি কি উদ্দেশে সেখানে গিয়েছিলাম। এই মুর্শিদাবাদের সাথে বাংলা তথা ভারতীয় উপমহাদেশের স্মৃতি বিজড়িত। এখানেই পলাশির আম্রকাননে এ দেশের স্বাধীনতার সূর্য অস্তমিত হয়েছিল। 

বাংলার শেষ নবাব সিরাজউদ্দৌলা এবং আরো অনেক ইতিহাস প্রসিদ্ধ ব্যক্তির সমাধিক্ষেত্র এই মুর্শিদাবাদ। নবাববাড়ি আজও সেখানে স্মৃতিরক্ষা করছে, তা নিজ চোখে দেখার জন্যই আমার এ ভ্রমণ। উদ্দেশ্যটা আমার বৃথা যায়নি। মুর্শিদাবাদের বহু ছবি নিয়ে এসেছি, নবাবের বাড়ির সম্মুখে দাঁড়িয়ে যে ছবি তুলেছি তার এক কপি তোমার কাছে পাঠালাম।

আশা করি কুশলে আছ। যা হোক, তোমার আব্বা ও আম্মাকে আমার সশ্রদ্ধ সালাম দিও। তোমার পত্রের অপেক্ষায় থাকব।

ইতি 
তোমারই প্রিয় বন্ধু 
সবুজ



প্রেরক
সবুজ
বিক্রমপুর,
ঢাকা
ডাকটিকেট
প্রাপক 
সোহেল
মাইজদী,
নোয়াখালী

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

শিক্ষাগার ওয়েবসাইটের নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url