জাতীয় পতাকা - রচনা [ class 1, 2, 3, 4, 5 ]

জাতীয় পতাকা রচনা - ১

সূচনা: 

জাতীয় পতাকা একটি স্বাধীন জাতির মর্যাদার প্রতীক। প্রতিটি স্বাধীন জাতির একটি জাতীয় পতাকা রয়েছে। জাতীয় পতাকার মর্যাদা ও মূল্য অপরিসীম।

স্বাধীনতার প্রতীক: 

আমাদের দেশের নাম বাংলাদেশ। এটি একটি স্বাধীন সার্বভৌম রাষ্ট্র। বহু সংগ্রাম ও রক্তের বিনিময়ে আমরা বাংলাদেশের স্বাধীনতা পেয়েছি। বিশ্বের অন্যান্য স্বাধীন জাতির মতো আমাদেরও স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বের প্রতীক হিসেবে একটি জাতীয় পতাকা রয়েছে।

পতাকার বিশেষত্ব: 

আমাদের জাতীয় পতাকায় লাল রঙের জমিনের মাঝখানে রয়েছে লাল বৃত্ত। সবুজ রং বাংলাদেশের শ্যামল প্রকৃতিকে বোঝায় এবং লাল বৃত্ত রক্তঝরা মুক্তিযুদ্ধের প্রতীক। আমাদের জাতীয় পতাকার দৈর্ঘ্য ও প্রস্থের অনুপাত ১০: ৬। অর্থাৎ, দৈর্ঘ্য ১০ ফুট হলে প্রস্থ হবে ৬ ফুট। সবুজ রং প্রকৃতি ছাড়াও দেশের তারুণ্য ও সমৃদ্ধির সম্ভাবনাকে বোঝায়। 

আরও পড়ুন :- একুশে ফেব্রুয়ারি রচনা - ২০০ শব্দ [ক্লাস ৩, ৪ এবং ৫] - ২টি 

লাখো শহিদের রক্তসাগর পাড়ি দিয়ে আমাদের স্বাধীনতার সূর্য উঠেছে। পতাকার মাঝের রক্তিম লাল সূর্য সেটিই তুলে ধরে। এভাবে এ পতাকার মধ্যে আমাদের প্রকৃতি, গৌরবময় ইতিহাস ও ভবিষ্যৎ সম্ভাবনার প্রতিফলন ঘটেছে।

সম্মান প্রদর্শন: 

জাতীয় পতাকার প্রতি যথাযথ সম্মান প্রদর্শন করা আমাদের প্রত্যেকের কর্তব্য। স্কুল, কলেজ ও অন্যান্য শিক্ষা- প্রতিষ্ঠানে জাতীয় পতাকা উড়িয়ে তাকে অভিবাদন করতে শিক্ষা দেওয়া হয় । বিভিন্ন অনুষ্ঠানে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করার সময় উঠে দাঁড়িয়ে শ্রদ্ধা জানাতে হয় ।

উপসংহার: 

আমাদের জাতীয় পতাকা আমাদের কাছে অতি প্রিয় । জাতীয় পতাকা দেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বের প্রতীক। বুকের রক্ত দিয়ে হলেও আমরা তার মর্যাদা রক্ষা করব।

জাতীয় পতাকা রচনা - ২

সূচনা :- 

একটি স্বাধীন জাতির স্বীকৃতি এবং মর্যাদার প্রতীক হলো জাতীয় পতাকা। প্রত্যেক স্বাধীন জাতির একটি জাতীয় পতাকা রয়েছে। জাতীয় পতাকার মূল্য অপরিসীম।

স্বাধীনতার প্রতীক :- 

আমরা বাংলাদেশি। আমাদের দেশের নাম বাংলাদেশ। বহু সংগ্রাম ও রক্তের বিনিময়ে আমরা স্বাধীনতা পেয়েছি। বিশ্বের অন্যান্য জাতির মতো আমাদেরও স্বাধীনতার প্রতীক হিসেবে একটি পতাকা রয়েছে। আমাদের পতাকাটি দু’রঙের- আয়তাকার ঘন সবুজ রঙের ওপর উদীয়মান সূর্যের রঙের একটি লাল বৃত্ত।

আমাদের জাতীয় পতাকা নির্মাণের নিয়মাবলি :- 

আমাদের পতাকার দৈর্ঘ্য ও প্রস্থের অনুপাত ১০ : ৬। অর্থাৎ যদি পতাকার দৈর্ঘ্য ৩০৫ সেমি (১০ ফুট) হয়, প্রস্থ ১৮৩ সেমি (৬ ফুট) হবে। লাল বৃত্তটির ব্যাসার্ধ পতাকার দৈর্ঘ্যের পাঁচ ভাগের এক ভাগ ।

পতাকার দৈর্ঘ্যের ২০ ভাগের ৯ ভাগে একটি লম্ব (খাড়া সরলরেখা) টানাতে হবে। তারপর প্রস্থের ঠিক অর্ধ ভাগে দৈর্ঘ্যের সঙ্গে সমান্তরাল করে আর একটি রেখা টানতে হবে । এদুটি রেখার ছেদবিন্দুই হবে বৃত্তটির কেন্দ্রবিন্দু। 

আরও পড়ুন :- বাংলাদেশের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য - রচনা : Class 3, 4, 5

পতাকার বিশেষত্ব :- 

আমাদের জাতীয় পতাকার সবুজ রং বাংলাদেশের সবুজ-শ্যামল প্রকৃতিকে বোঝায়। এটি দেশের তারুণ্য, সজীবতা বহন করছে। লাল রঙের সূর্য নবজাগরণ ও সাম্যের কথাই তুলে ধরেছে। অপূর্ব সুন্দর আমাদের এ জাতীয় পতাকা। আমাদের পতাকা বহন করে আমাদের বাংলাদেশি জাতীয়তাবাদ। এর মাঝে আমাদের শিক্ষা, সংস্কৃতি ও আশা-আকাক্ষার প্রতিফলন ঘটেছে।

সম্মান প্রদর্শন :- 

জাতীয় পতাকার জন্য আমরা সব সময় গর্ব বোধ করে থাকি । এর প্রতি যথাযথ সম্মান প্রদর্শন করাও আমাদের কর্তব্য। স্কুল, কলেজ ও অন্যান্য শিক্ষা-প্রতিষ্ঠানে জাতীয় পতাকা উড়িয়ে একে অভিবাদন জানাতে শিক্ষা দেওয়া হয়।

উপসংহার :- 

আমাদের জাতীয় পতাকা আমাদের কাছে অতিপ্রিয় । বুকের রক্ত দিয়ে আমরা তার মর্যাদা রক্ষা করব। এর কোনো অমর্যাদা ব আমরা হতে দেব না।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

শিক্ষাগার ওয়েবসাইটের নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url