ভোগে নয় ত্যাগেই প্রকৃত সুখ ভাব সম্প্রসারণ - ২টি

ভোগে নয় ত্যাগেই প্রকৃত সুখ ভাব সম্প্রসারণ - ১

মূলভাব : ভোগের মধ্যে সুখ নেই- প্রকৃত সুখ বিরাজ করে ত্যাগের মাঝে ।

সম্প্রসারিত ভাব : ভোগ ও ত্যাগ যেন দু'টি আলাদা রাস্তা। একটি আত্মবনতির অন্যটি আত্মমুক্তির । ভোগের রাস্তায় গেলে আত্মবনতি ঘটে; ত্যাগের রাস্তায় গেলে ঘটে আত্মমুক্তি। ভোগ মানুষকে সংকুচিত করে আর ত্যাগ মানুষকে করে প্রসারিত। ভোগ মানব মনে লোভের জন্ম দেয়, লোভ থেকে আসে সীমাহীন দুঃখ । ত্যাগ মানুষকে পূর্ণতা এনে দেয়, এনে দেয় প্রশান্তি । পরের হিতার্থে যিনি নিজের জীবন বিলিয়ে দেন, পৃথিবীতে তিনি হন মহৎ, মরার পরে হন অমর । 

যারা ভোগের জন্য জীবন যাপন করে তারা শুধু পশুর মতো নিজের জীবন বাঁচানোর জন্য বাঁচে। তার এ বাঁচা মৃত্যুর সাথে সাথেই শেষ হয়ে যায় । যারা ত্যাগ করে তারা বাঁচে পরের জন্য; মৃত্যুর পর তারা আবার অপরের প্রাণে সজীব হয়ে ওঠে। বিশ্বের মহামানবগণ আত্মত্যাগের মাঝেই মহৎ হতে পেরেছেন ।

মন্তব্য : স্বার্থ ত্যাগের মাঝেই জীবনের চরম সফলতা। প্রতিটি মানুষের কর্তব্য ভোগ ত্যাগ করে ত্যাগকে স্বাগতম জানানো ।

আরও পড়ুন :- ভাবসম্প্রসারণ : চকচক করলেই সোনা হয় না - ৩টি 

ভোগে নয় ত্যাগেই প্রকৃত সুখ ভাব সম্প্রসারণ - ২

মূলভাব : অপরের মঙ্গলের আত্মতৃপ্তিই বড় সুখ।

সম্প্রসারিত ভাব : ভোগের কোনো শেষ নেই, কোনো পরিতৃপ্তি নেই, যতই মানুষ ধনসম্পদ ভোগ করে ততই তার ভোগের ইচ্ছা বেড়ে যায়। ফলে প্রচুর ভোগের ব্যবস্থাও তার কাছে অতি সামান্য বলে মনে হয় এবং অন্তরের দিক থেকে সে খুবই দরিদ্র হয়ে পড়ে। শেষ পর্যন্ত আরো ভোগ করার অতৃপ্ত লালসার দংশন তাকে এমনভাবে জর্জরিত করতে থাকে, তার ধনসম্পদ যত বেশিই হোক তা তার কাছে অতি নগণ্য বলে প্রতীয়মান হয়। 

আরো বেশি পাবার আকাঙ্ক্ষা তার অন্তরে এক দুঃখানুভূতি জাগিয়ে রাখে। যা আছে তা ভোগ করে আনন্দ লাভ করতে তার আর প্রবৃত্তি থাকে না। যা নেই তা পাবার আকাঙ্ক্ষায় ব্যগ্র বাহু বাড়িয়ে সে শুধু দুঃখকেই আহ্বান করতে থাকে। অন্যদিকে প্রত্যেক মানুষেরই দেশের প্রতি ও সমাজের প্রতি অনেক দায়িত্ব ও কর্তব্য রয়েছে। এ দায়িত্ব এত বেশি যে কখনো শেষ হয় না। সামাজিক দায়িত্ব ও কর্তব্য মানুষকে সৎ ও মহৎ করে তোলে এবং অন্তর অপার আনন্দে পরিপূর্ণ করে দেয়। 

দেশে ও সমাজে অসহায় নারী-পুরুষ ও জীব-জন্তু রয়েছে। তাদের সেবা করলে এবং তাদের বিপদে সাহায্য করতে পারলে অজ্ঞাতে অন্তরে এক অনির্বচনীয় শান্তি ও সুখের ধারা বয়ে যায়। মানুষকে সব দুঃখ ভুলিয়ে দিয়ে তার প্রাণ বেহেশতের সুখ শান্তিতে ভরে দেয়। অতএব ভোগে সুখ নেই, পরের মঙ্গলের জন্য জীবন উৎসর্গ করতে পারলেই প্রকৃত সুখ পাওয়া যায় এবং জীবন সার্থক হয়।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

শিক্ষাগার ওয়েবসাইটের নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url